বিদ্যুৎ বিল না দিলে গুলি করে হত্যার হুমকি মিয়ানমার সেনাবাহিনীর

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০০:৪৮

মিয়ানমারে সামরিক জান্তাকে রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত রাখতে অসহযোগ আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিদ্যুৎ বিল দেওয়া বন্ধ করেছে দেশটির অসংখ্য মানুষ।

জনসাধারণের এসব উদ্যোগ সামরিক শাসনের পতন ঘটাতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু সেনা অভ্যুত্থানের ১১ মাস পরে এসে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী টাকা আদায়ের জন্য এতটাই মরিয়া যে তারা এখন কঠোর পাওনাদারের মতো আচরণ করছে।

মিয়ানমারবাসীরা জানান, গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ইয়াঙ্গুন ও মান্ডালেসহ বিভিন্ন শহরে সৈন্যরা বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মীদের নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে হাজির হচ্ছে বিল উঠাতে। মিয়ানমারে প্রতিবাদ-ধর্মঘট ও অসহযোগ আন্দোলনকে রুখে দিতে এরইমধ্যেই ব্যাপক ধরপাকড় চালিয়েছে সেনাবাহিনী। এবার বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের জন্য হুমকিও যুক্ত হয়েছে এই তালিকায়।

অনলাইনে ভিন্টেজ জামাকাপড় বিক্রি করেন ২৪ বছর বয়সী কো সি থু অং। আন্দোলনের অংশ হিসেবে গত ফেব্রুয়ারি থেকে বিদ্যুৎ বিল বকেয়া ছিল তার। কিন্তু ক্রিসমাসের দিন সৈন্যরা এসে তার বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেয়। দুদিন বিদ্যুতবিহীন থাকার পর বিল পরিশোধ করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না তার।

বিল পরিশোধের জন্য অপেক্ষারত আরো ৩০০ জনের লাইনে দাঁড়িয়ে অং বলেন, বিদ্যুৎ না থাকলে আমি কাজ করতে পারবো না। কিন্তু আমাদের এই টাকাই গুলি-বন্দুক কিনতে ব্যবহৃত হবে এবং তা দিয়ে আমাদেরই মারা হবে ভেবে কষ্ট লাগছে।

মিয়ানমারভিত্তিক অর্থনীতিবিদ ইউ হেইন মং বলেন, গত ১০ মাসের ঘটনাবলি মিয়ানমারের গত ১০ বছরের অর্জনকে ধ্বংস করে দিয়েছে। একই সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্যের খরচও অনেক বেড়ে গেছে। মাদক পাচার, অবৈধ কাঠের ব্যবসা এবং অর্থ পাচারসহ নানা বেআইনি ব্যবসার প্রসার ঘটেছে।

তিনি জানান, বিদ্যুৎ বিল আদায়ের পরিমাণ উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পাওয়ায় সামরিক সরকারের রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ আগের সরকারের চাইতে এক-তৃতীয়াংশ কমে গেছে।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ