ফুসফুস প্রতিস্থাপন করল কলকাতার হাসপাতাল

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১১

শুনতে তো দূরের কথা, এক সময়ে ভাবনাতেও অসম্ভব ছিল যে, একজনের ফুসফুস বসবে আরেকজনের শরীরে। সেই অসম্ভবই সম্ভব হয়েছে। কলকাতার মেডিকা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে সেটি সম্ভব করেছেন চিকিৎসকরা। 

পুরো অস্ত্রপচারে সময় লেগেছে ৬ ঘণ্টা। রোগীকে আপাতত ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। 

যে রোগীর শরীরে ফুসফুস প্রতিস্থাপন করা হয়েছে তার শরীরে এ ফুসফুস কেমন কাজ করছে তা বুঝতে এই ৭২ ঘণ্টা সময় নিচ্ছেন চিকিৎসকরা। 

পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসাজগতে এ ঘটনাটিকে নয়া ইতিহাস বলেই মনে করা হচ্ছে।     

ঘটনার শুরু সোমবার। কলকাতার মেডিকা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ১০৩ দিন ধরে ভর্তি ছিলেন ৪৬ বছর বয়সী এক রোগী। তার ফুসফুস একেবারেই কাজ করছিল না। আগের দুই মাস ধরে তাকে একমো সাপোর্ট দিয়ে রেখেছিলেন চিকিৎসকরা।  

তবে শেষের দিকে এসে সেটিও আর কাজ করছিল না। ফলে চিকিৎসকের হাতে শেষ অস্ত্র ছিল ফুসফুস প্রতিস্থাপন। ওই রোগীর পরিবারকে বিষয়টি জানাতে তারা ফুসফুসের সন্ধান শুরু করেন। 

এরই মধ্যে ওই রোগীর স্বজনদের কাছে খবর আসে গুজরাটের সুরাটে এক রোগীকে ব্রেনডেড ঘোষণা করা হয়েছে। আর মৃত্যুর এ খবরেই নতুন করে প্রাণ পান এই রোগীর স্বজনরা। এর পর দুই রোগীর স্বজনদের যোগাযোগ হয়, কথা হয় দুই হাসপাতালের চিকিৎসকদের। সব কিছুর সমন্বয় করে সোমবার সুরাট থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে কলকাতায় নিয়ে আসা হয় ফুসফুসটি।  

ওইদিন রাতে দমদম বিমানবন্দরে ফুসফুসটি পৌঁছানোর পর গ্রিন করিডোর করে তা নিয়ে আসা হয় হাসপাতাল পর্যন্ত। ওই রাতেই অস্ত্রপচার করে ফুসফুস প্রতিস্থাপন করেন চিকিৎসকরা।  

কলকাতায় তো বটেই পুরো পশ্চিমবঙ্গেই এ প্রথম ফুসফুস প্রতিস্থাপন করা হলো।  

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
ksrm