প্রয়োজনে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারাগারে পাঠানো হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২২:৪৬

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, চিনির সরবরাহ ও দাম স্বাভাবিক রাখতে সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। গ্যাসের সরবরাহ স্বাভাবিক হলেই চিনির উৎপাদন বাড়বে। এছাড়া চিনি আমদানিতে শুল্ক কমিয়ে দাম কমানো এবং সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। আসন্ন রমজান মাসে চিনিসহ সকল নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ন্যায়সংগত মূল্য নিশ্চিত করা হবে। এজন্য ভোক্তা অধিকার বিভিন্ন জায়গায় হানা দিচ্ছে, জরিমানা করছে। এর বাইরে প্রয়োজন হলে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারাগারে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।

রোববার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত আমদানি-রপ্তানিসহ সার্বিক ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে 'বাণিজ্য সহায়ক পরামর্শক কমিটি'র ৮ম সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রমজান মাস সামনে রেখে নিত্যপণ্যসহ প্রয়োজনীয় সকল পণ্যের সরবরাহ ও মজুত নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পণ্য আমদানির জন্য এলসি খুলতে কোনো সমস্যা হবে না। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে। রমজান মাসসহ সারা বছর মানুষ যেন ন্যায়সংগত মূল্যে পণ্য কিনতে পারেন, সেজন্য সব পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, সয়াবিন তেলের পাশাপাশি সানফ্লাওয়ার ও ক্যানোলায় শুল্ক কমিয়ে আমদানি বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। পণ্য আমদানি, সরবরাহ, মজুত ও মূল্য বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকার একটি কো-অর্ডিনেশন সেল গঠন করে সার্বিক সহায়তা দেবে। চলমান বিশ্ব পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সরকারের পাশাপাশি ব্যবসায়ী ও সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। মানুষ যেন কষ্ট না পায়, সেজন্য যা কিছু করা দরকার, সরকার করবে।

রপ্তানি বাড়ছে উল্লেখ করে টিপু মুনশি বলেন, পণ্য ও সেবা খাত মিলে চলতি বছরে ৬৭ বিলিয়ন ডলার রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত নভেম্বর মাসে রেকর্ড রপ্তানি আয় হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। এছাড়া রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ছে। সবদিক বিবেচনায় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং অর্থনীতি সঠিক পথেই এগিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে অপপ্রচারের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

সভা পরিচালনা করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মোহাম্মদ হাসান ইমাম খান, এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন এমপি, এফবিসিসিআইর বর্তমান সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স, বাংলাদেশের সভাপতি মাহবুবুর রহমান বিজিএমইর সভাপতি ফারুক হাসান, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী, ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রহমান, বিটিএমএ সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকনসহ বিভিন্ন খাতের ব্যবসায়ীরা বক্তব্য প্রদান করেন। এসময় এনবিআর, বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এবিএন/আব্দুর রাজ্জাক/জসিম/এআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ