আজকের শিরোনাম :

তিতাসে দাখিল পরীক্ষার্থীর ছুরিকাঘাতে কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু, আটক ৫

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৯:০৪

কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় দাখিল পরীক্ষার্থীর ছুরিকাঘাতে এক কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

ঘটনা ঘটেছে আজ বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার সময় উপজেলার গাজীপুর আজিজিয়া সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসা গেইটে।

এঘটনায় জরিত সন্দেহে ৫ পরীক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত কলেজ শিক্ষার্থী তিতাস উপজেলার চরমোহনপুর গ্রামের বাকের সরকারের ছেলে মো.সিয়াম(১৮)।

আটককৃতরা হলো- মেঘনা উপজেলার ব্রাহ্মণচর গ্রামের মৃত হেলাল উদ্দিনের ছেলে মুকুল আহম্মেদ (১৭), আওলাদ হোসেনের ছেলে মাসুম বিল্লা(১৮), শফিক মিয়ার ছেলে সায়মুন মিয়া(১৭), জয় মিয়ার ছেলে  শাকিব(১৮) ও নাজির হোসেনের ছেলে জুনায়েদ(১৮)। একই গ্রামের  তাদের সাথে আরো তিন বন্ধু আবু বক্কর (১৭)আবির হোসেন ও শাহাদাত পালিয়ে গেছে।

তারা সবাই তিতাস উপজেলার গাজীপুর গ্রামের নাছির উদ্দিনের বাড়িতে ভাড়া থেকে পরীক্ষা দিত।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায় মেঘনা উপজেলার ব্রাহ্মণচর নয়াগাও সিনিয়র আলিম মাদ্রাসার ৮ জন দাখিল পরীক্ষার্থী তিতাসের গাজীপুর আজিজিয়া সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে পরীক্ষা শেষে কেন্দ্র থেকে বের হয়ে, তিতাসের চরমোহনপুর গ্রামের সিয়ামের সাথে সংঘর্ষে জরিয়ে পরে একপর্যায় দাখিল পরীক্ষার্থীরা সিয়ামকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে গুরতর আহত করে।  

রাশেদা আক্তার নামে এক নারী ও স্থানীয় সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম পাশা আহত সিয়ামকে উদ্ধার করে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়।

জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক জাকারিয়া পারভেজ চিকিৎসা দেয়ার সময় সিয়ামের মৃত্যু হয় বলে জানান কর্তব্যরত চিকিৎসক।

নিহত সিয়ামের এক বন্ধু বলেন ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে তর্কাতর্কি হয়েছে,সে বিষয়ে মিমাংসা করার কথা বলে আজকে সিয়ামকে ডেকে আনে, কারা ডেকে আনে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিয়ামের বন্ধু কিছুই বলতে বলতে পারেনি।

নিহত সিয়ামের পিতা হেলাল সরকার সবিজ বলেন আমার ছেলে মুন্সিগঞ্জ পলিটেকনিকে প্রথম বর্ষে লেখা পড়া করতো।

মাতা তাহমিনা সবুজ বলেন সামাদ মাষ্টারের মেয়ের সাথে মেঘনার ব্রাহ্মণচর নয়াগায়ের   এক ছেলে সাথে প্রেমের সম্পর্ক এবিষয়ে আমার ছেলের সাথে ওই ছেলের ফেসবুকে তর্কাতর্কি হয় এবং আমার ছেলেকে হুমকি দেয়। 

পরে আমার ছেলে সিয়াম তার বাপের সাথে ঘটনাটি শেয়ার করলে সিয়ামের বাবা ওই ছেলেকে বুঝিয়ে দেয় বাবা ঝগড়া করিওনা।

তিতাস থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সুধীন চন্দ্র দাস বলেন ঘটনার সাথে জরিত সন্দেহ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

আরো ৩ জন পলাতক রয়েছে তাদেরকেও আটক করার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে।

এবিএন/কবির হোসেন/জসিম/আব্দুর রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ