খোকসার কৃষক হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৭ জুন ২০২১, ২০:৫২

কুষ্টিয়ার খোকসায় চেয়ারম্যানের নির্যাতনে নিহত কৃষকের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

বৃহস্পতিবার বিকেল চারটায় খোকসা বাসস্ট্যান্ডে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সর্বস্থরের মানুষ অংশ গ্রহন করেন।এর আগে নিহত কৃষক জসিমের গ্রাম রতনপুর থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়। খোকসা বাজর প্রদক্ষীন করে বাস স্ট্যান্ডে এস মানববন্ধন করে। প্রায় ৩০ মিনিট স্থায়ী হয় তাদের এ কর্মসূচি।

এ সময় নিহত কৃষক জসীম হত্যা মামলার বাদি হাসিম দাবি করেন, তার ভাই জসীম এলাকার বাসীদের সাথে শেষ রাত পর্যন্ত টেলিভিশনে ফুটবল খেলা দেখেছে। ভোরে বাড়ি ফেরার সময় পথ থেকে চেয়ারম্যান আয়ুব আলী ও তার লোকজন কৃষক জসীমকে ধরে নিয়ে যায়। চেয়ারম্যানের বাড়িতে আটকে তার উপর চালানো হয় শারীরিক নির্যাতন। হত্যার সাথে জড়িতরা তাকে মোটর সাইকেলের হাইডলিক রড দিয়ে পিটিয়ে চরমভাবে আহত করে। ঘাতকরা এই নির্যাতনের দৃশ্য ভিডিও করে তা দেখে উল্লাস নৃত্য করে। এক পর্যায়ে গুরুতর আহত জসীমকে গ্রাম পুলিশ দিয়ে রিকসা ভ্যানে বেঁধে হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কৃষক জসীম মারা যায়। ব্যক্তিগত বিরোধে জেরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তার ভাইকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। চক্রান্তকারীরা নিহত কৃষক জসীমকে মাছ চুরির অপবাদ দিয়েছে। তিনি খুনিদের ফাঁসি দাবি করেন।মানববন্ধন চলাকালে অন্যানদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, তৈহিদুল ইসলাম জুয়েল, ওলিদ, রাকিব, ওয়াসিম, সাইফুর রহমান জিকু, নিহতের ছোট বোন ঋতু প্রমুখ।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার ভোরে খোকসা ইউনিয়নের রতপুর গ্রামের রওশন আলীর ছেলে কৃষক জসীমকে স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আয়ুব আলী ও তার লোকজন ধরে নিয়ে যায়। চেয়ারম্যানের নিজের উচু প্রাচীর ওয়ালা বাড়িতে জসীমকে আটকে চরম শারীরিক নির্য়াতন চালানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। কৃষক জসীম অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাকে পুলিশে দেবার চেষ্টা করা হয়। অবশেষে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ রাকিবুল ইমনের মাধ্যমে জসীমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে পাঠানো হয়। সকাল ৬.৩৫ মিনিটে জসীম মারা যায়। এ হত্যাকান্ডের পর থেকে ইউপি চেয়ারম্যান ও তার পরিবারের সদস্যরা আত্মগোপনে রয়েছে।

এবিএন/সুমন কুমার/জসিম/জুয়েল

এই বিভাগের আরো সংবাদ