ডিসেম্বরের মধ্যেই ভোটার তালিকা হালনাগাদ শেষ করতে চায় ইসি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ নভেম্বর ২০২২, ১০:২২

ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে দেশের এক কোটি মানুষের তথ্য সংগ্রহ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডিসেম্বরের মধ্যবর্তী সময়ের মধ্যে নতুন ভোটারদের ছবি তোলা, ১০ আঙ্গুলের ছাপ, আইরিশসহ বায়োমেট্রিক নিবন্ধন শেষ করা যাবে।

জানা গেছে, কোটি মানুষের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে তাদের মধ্যে আগামী বছর ৩০ লাখের মতো ভোটার তালিকাভুক্ত হবে। বাকিরা পরের দুই বছরে আঠারো বছর পূর্ণ হওয়া সাপেক্ষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার হয়ে যাবেন।

নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানিয়েছেন, মাঠ পর্যায়ে একীভূত তথ্য অনলাইনে সব সময় আপডেট করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত ১ কোটির মতো ভোটারযোগ্য নাগরিকের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ছবিসহ সবাইকে নিবন্ধনের আওতায় আনা হবে। পরে খসড়া তালিকা ও চূড়ান্ত হওয়ার পর প্রকৃত ভোটার নিশ্চিত হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা। 

গত ২০ মে থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত দেশজুড়ে চার ধাপে ভোটারযোগ্য ব্যক্তিদের তথ্য সংগ্রহ করেছে ইসি। এসময় বর্তমান ভোটার তালিকা থেকে বাদ দিতে মৃতদের তথ্য সংগ্রহও করা হয়েছে; এবার মৃত ভোটারের সংখ্যা প্রায় ২০ লাখের মতো।

অশোক কুমার দেবনাথ জানান, প্রতিবছর ২ দশমিক ৫ শতাংশ হারে নতুন ভোটার যুক্ত হওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও তিন বছর মিলিয়ে এবার তথ্য সংগ্রহ ‘টার্গেট’ ছাড়িয়েছে। প্রায় ৮ শতাংশের ওপরে হতে পারে। ১৫-১৭ বছরের অনেকের তথ্য নেওয়া হলেও ২ মার্চ চূড়ান্ত তালিকায় যারা যুক্ত হবে তারাই আগামী দ্বাদশ সংসদ ভোট দিতে পারবেন।

সবশেষ ২০২২ সালের ২ মার্চ দেশের মোট ভোটারের সংখ্যা ছিল ১১ কোটি ৩২ লাখ ৮৭ হাজার ১০ জন। ভোটার হওয়ার প্রক্রিয়া চলমান থাকায় বর্তমানে ভোটার সংখ্যা আরও কয়েক লাখ বেশি হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা মনে করছেন, নতুন ভোটার যুক্ত করার পর এবং মৃতদের বাদ দিলে আগামী সংসদ নির্বাচনে সময় ভোটার দাঁড়াবে প্রায় ১১ কোটি ৬০ লাখের মতো।

জানা গেছে, এবার তথ্য সংগ্রহ হয়েছে এক কোটি  দুই লাখ ১৪ হাজার ৩০৪ জন নাগরিকের (৮ দশমিক ৮৯ শতাংশ)। এরমধ্যে পুরুষ ৫২ লাখ ৮২ হাজারের মতো এবং নারী ৪৯ লাখ ৩০ হাজারের বেশি। আর হিজড়া দুই সহস্রাধিক নাগরিক।

অন্যদিকে মৃত ভোটারের তথ্য সংগ্রহ হয়েছে ২০ লাখ ১৭ হাজার ৪৯৬ জন। যার মধ্যে পুরুষ ১১ লাখ ৮২ হাজার ২৩ জন এবং নারী ৮ লাখ ৩৫ হাজার ৪৭৩ জন।

কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ২০২৪ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে। সামনের নির্বাচন তারা ইভিএমে করতে চায় ইসি। তবে সময়মতো নতুন করে ইভিএম কেনার প্রকল্প পাস না হলে তিনশো আসনে ইভিএমে ভোট নাও হতে পারে বলে ইসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ