এক দিনে ৮ জেলায় বজ্রপাতে ১৫ জনের মৃত্যু

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ জুন ২০২০, ২১:৪০

দেশের ৮ জেলায় বজ্রপাতে নারীসহ ১৫ জন মারা গেছে।  বুধবার রাত (দিনগত) থেকে বৃহস্পতিবার বিকালের মধ্যে এসব ঘটনা ঘটে। 

এর মধ্যে বগুড়ায় ৪ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১ জন গৃহবধূ, ময়মনসিংহে ১ কিশোরসহ ৩জন, কুষ্টিয়ায় ২জন, জয়পুরহাট, নোয়াখালী ও যশোরে ১জন করে এবং টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রসহ ২ জন মারা গেছে।  

বিভিন্ন জায়গা থেকে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন-

টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে বজ্রপাতে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রসহ দুইজন নিহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ জুন) বিকালে সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের ধরেরবাড়ী পশ্চিমপাড়া এলাকায় স্কুলছাত্র মো. অনিক (১৫) মারা যায়। অনিক ওই এলাকার মো. আইয়ুব মিয়ার ছেলে ও ধরেরবাড়ী হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্র।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. আব্দুল হক এবিনিউজকে বলেন, বাড়ির পাশে ধান ক্ষেতে মা-বাবার সঙ্গে অনিক তাদের খড় শুকাচ্ছিল। হঠাৎ বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই অনিক লুটিয়ে পড়ে। তাকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে জেলার ঘাটাইলে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার আনেহলা ইউনিয়নের বগাজান গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আনেহলা ইউপি চেয়ারম্যান তালুকদার শাহজাহান এবিনিউজকে জানান, উপজেলার বগাজান গ্রামের রুস্তম আলীর ছেলে মোহাম্মদ জামাল মিয়া (৫০) বুধবার রাতে বৃষ্টির ডাক শুনে বাড়ির পাশের পতিত জমিতে খড়ের পালা দিতে যায়। এ সময় বৃষ্টি শুরু হয় এবং হঠাৎ তার উপর বজ্রপাত পড়লে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

বগুড়া
বগুড়ায় বজ্রপাতে চারজন কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার পর থেকে বিকাল পর্যন্ত জেলার সারিয়াকান্দি, ধুনট, শাজাহানপুর এবং কাহালু উপজেলায় বজ্রপাতে এই চারজনের মৃত্যু হয়।

নিহতরা হলেন, সারিয়াকান্দি কাজলা ইউনিয়নের চরকুড়িপাড়া গ্রামের বুলু মন্ডলের ছেলে কৃষক লেবু মন্ডল, কাহালু উপজেলার এরুইল গ্রামের কছিম উদ্দিনের ছেলে কৃষক মোখলেছার, শাজাহানপুর উপজেলার হরিণগাড়ী মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিনের ছেলে কৃষক নূর ইসলাম এবং ধুনটের গোপালনগর গ্রামের দেরাজ আলী সরকারের ছেলে কৃষক আব্দুস ছালাম সরকার।

কাহালুর মালঞ্চা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম এবং ধুনট, সারিয়াকান্দি ও শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাদের নিজ এলাকায় মৃত্যুর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে বজ্রপাতে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের জামাই পাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। মৃত পিয়ারা হেরাস উদ্দীনের স্ত্রী।

মৃতের চাচা আলামিন জুয়েল জানান, বিকালে হঠাৎ করে বৃষ্টিপাতের সময় আমার ভাতিজি তার বাড়ির মধ্যে কাজ করার সময় বজ্রপাতে গুরুতর আহত হয়। পরে আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় এক ডাক্তারের কাছে নেয়া হলে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পাকা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য তরিকুল ইসলাম বজ্রপাতে একজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জয়পুরহাট
বজ্রপাতে জয়পুরহাটে সুকুমল সরকার নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। জয়পুরহাট সদর উপজেলার পূর্ব পারুলিয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঝড়-বুষ্টির সময় নিজ বাড়ির বাইরে টিউবওয়েলে গোসল করার সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহরিয়ার খান এ এবিনিউজকে তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নিহত কৃষক সুকুমল সরকার পূর্ব পারুলিয়া গ্রামের মৃত রাজেন্দ্র সরকারের ছেলে।

যশোর
যশোরের মণিরামপুরে বজ্রপাতে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। মৃত দীপ্ত বৈরাগী (২২) উপজেলার কুলটিয়া ইউনিয়নের হাটগাছা গ্রামের ব্রজেন বৈরাগীর ছেলে।

নেহালপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সৈয়দ বখতিয়ার হোসেন এবিনিউজকে বলেন, দীপ্ত বৃহস্পতিবার সকালে বাড়িরপাশে বিলের মধ্যে মাছের ঘেরে কাজ করতে যায়। কাজ শেষে গবাদি পশুর জন্য ঘাস কেটে দুপুর ২টার দিকে নৌকায় বাড়ি ফিরছিল। এ সময় হঠাৎ মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। পথিমধ্যে বজ্রপাতে নৌকার উপরে তার মৃত্যু হয়।

কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পৃথকস্থানে বজ্রপাতে দুইজন নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টার দিকে বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের সময় এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার চর সাদিপুর ইউনিয়নের পদ্মার চর এলাকার হামিদুল মন্ডলের ছেলে রাখাল ফারুক মন্ডল (৩০) এবং একই উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের সদরপুর সর্দারপাড়ার ময়জুদ্দিন মন্ডলের ছেলে শফি মন্ডল (৪৫)।

সাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জেল হোসেন ও কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবুর রহমান মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ময়মনসিংহ
ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলায় বজ্রপাতে নিহত হয়েছে দুই কিশোরসহ তিনজন। বৃহস্পতিবার বিকালে বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাতে উপজেলার আছিম-পাটুলী ও কালাদহ ইউনিয়নে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আছিম-পাটুলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস এম সাইফুদ্দিন ও স্থানীয় সাংবাদিক মতিন কাজী।

তারা জানান, বৃহস্পতিবার বৃষ্টি শুরু হলে এ সময় বজ্রপাতে আছিম-পাটুলী ইউনিয়নের জঙ্গলবাড়ি গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে কৃষক মোতালেব (৬০) মারা যান। এ সময় তিনি গোসল করছিলেন। এদিকে একই ইউনিয়নের রামনগড় গ্রামের মোফাজ্জলের হোসেনের ছেলে রবিন (১৩) বাড়ির পাশে বিলে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে নিহত হয়। এছড়াও কালাদহ ইউনিয়নের বিদ্যানন্দ পূর্বপাড়া গ্রামের আইয়ুব আলীর কিশোর ছেলে ইমরান (১৭) বাড়ির পাশের খোলা মাঠে ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়।

নোয়াখালী
নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় বজ্রপাতে রফিক উল্যা (৪০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে জাহাইজ্জারচর (স্বর্ণদ্বীপ) এলাকায় এ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। নিহত রফিক উল্যার জেলার সুবর্ণচর উপজেলর চরবাটা ইউনিয়নের মধ্য চরবাটা গ্রামের সফি আলমের ছেলে।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ