২০২৫ সালের মধ্যে লক্ষাধিক কর্মসংস্থান হবে অ্যামাজনে

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৭ জুলাই ২০২০, ১০:৩৯

করোনা আবহে বারবার ‘আত্মনির্ভর’ ভারতের পক্ষে সওয়াল করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেকথাকেই পাথেয় করে এগিয়ে চলছে বিশ্বের বৃহওম অনলাইন বিপণন সংস্থা আমাজন। বর্তমানে মানুষ অনেক বেশি অনলাইন কেনাকাটিতেই বিশ্বাসী। তাই সংস্থার দাবি, হু হু করে বাড়ছে ব্যবসা। এভাবে চলতে থাকলে আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থানের বন্দোবস্ত হবে বলেই আশা কর্তৃপক্ষের।
 
তবে এই প্রথমবার নয়। এর আগেও একাধিকবার কর্মপ্রার্থীদের সুখবর শুনিয়েছে আমাজন। গত বছরেরও প্রচুর পরিমাণ কর্মী নিয়োগ করেছিল অনলাইন বিপণন সংস্থাটি। মে মাসেই অন্তত ৫০ হাজারেরও বেশি কর্মী নিয়োগ হয়েছিল। তবে সেই সময় মূলত ক্রেতাদের বাড়ি বাড়ি জিনিসপত্র পৌঁছে দেওয়ার জন্য কর্মী নিয়োগ করা হয়েছিল। লকডাউনে বহু জায়গায় যখন কর্মী ছাঁটাই হয়েছে তখন কঠিন পরিস্থিতিতেও কর্মপ্রার্থীদের জন্য সুখবর শুনিয়েছে অনলাইন বিপণন সংস্থা আমাজন। অন্তত ২০ হাজার কর্মী নিয়োগের কথা জানানো হয়েছে। কলকাতা, নয়ডা, জয়পুর, চণ্ডীগড়, ম্যাঙ্গালুরু, ইন্দোর, ভোপাল, লখনউ, হায়দরাবাদ, পুণে, কোয়েম্বাটোরেই মূলত কর্মী নিয়োগের কথা জানানো হয়েছিল।

ওই শূন্যপদে নিযুক্ত প্রার্থীরা মূলত আমাজনের ক্রেতাদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন। অর্থাৎ এই শূন্যপদে যাঁরা যোগ দিয়েছিলেন তাঁরা ক্রেতাদের সুবিধা, অসুবিধার দিকে নজর রাখেন। ই-মেল, সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা ফোনে কথা বলে ক্রেতাদের সমস্যার সমাধান করাই প্রধান কাজ তাঁদের। মূলত বাড়িতে বসেই কাজের সুবিধাও পান ওই কর্মীরা। উচ্চমাধ্যমিক পাশ হলেই তাঁকে কাজে যোগ দেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়। তার ফলে বেশিরভাগ মানুষই চাকরির সুযোগ পান। গোটা বিশ্বজুড়ে ক্রেতা ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকায় সংস্থার দাবি কর্মপ্রার্থীদের ইংরাজি, হিন্দি, তামিল, তেলুগু এবং কন্নড় ভাষা জানতে হবে। এই ভাষাগুলিতে বলা, পড়া এবং লেখার ক্ষেত্রে দক্ষতা দেখা হয়।
 
লকডাউনের মাঝে চুক্তিভিত্তিতে কর্মী নিয়োগ করা হয়েছিল ঠিকই। তবে কোনও নিযুক্ত ব্যক্তির দক্ষতার ভিত্তিতে তাঁকে স্থায়ী কর্মী হিসাবে সংস্থায় পরে রাখা হতে পারে বলেও অনলাইন বিপণন সংস্থার তরফে জানানো হয়েছিল।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ