জয়ের স্বাদ পেয়েছে ৫ অধিনায়ক, মুমিনুল পারবে তো?

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৫২

বাংলাদেশের টেস্ট খেলার ইতিহাস ১৯ বছরের। ১৯৯৯ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের পরের বছরই টেস্ট স্ট্যাটাস পায় টাইগাররা। এ ১৯ বছরে ১০ জন অধিনায়ক দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এরমধ্যে ৫ জন অধিনায়ক জয়ের স্বাদ, পেয়েছেন। দেশের ১১তম টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে অভিষেক হতে যাচ্ছে মুমিনুল হকের।

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ১১৪টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) ভারতের বিপক্ষে নিজেদের ১১৫তম টেস্ট খেলতে মাঠে নামবে। এ পর্যন্ত ১৩টি টেস্টে জয়ের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ, ১৬টিতে ড্র করেছে। আর বাকি ৮৫টি ম্যাচেই পরাজয় বরণ করেছে।

বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে নেতৃত্ব দেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়। ভারতের বিপক্ষে সে ম্যাচে বাংলাদেশ হেরে যায়। এরপর তিনি আরও ৬টি টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দিলেও জয়ের মুখ দেখেননি। একটি ম্যাচে অবশ্য ড্র করেছিলেন দুর্জয়। খালেদ মাসুদ পাইলট ও খালেদ মাহমুদ সুজন যথাক্রমে ১২ ও ৯টি টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে সবকয়টিতে হারের স্বাদ গ্রহণ করেন।

টেস্টে বাংলাদেশ প্রথম জয়ের দেখা পায় চতুর্থ অধিনায়ক হাবিবুল বাশারের নেতৃত্ব। ২০০৪ সালে জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে তার নেতৃত্বে ইতিহাস গড়ে টাইগাররা। সবমিলিয়ে ১৮টি টেস্টে নেতৃত্ব দিয়েছেন বাশার। তার নেতৃত্বে একটি জয়ের পাশাপাশি ড্র করেছে ৪টি ম্যাচে। বাকি ১৩টি ম্যাচেই হেরেছে টাইগাররা।

আশরাফুলের নেতৃত্বে ১৩ ম্যাচে ১২টিতেই হেরেছে বাংলাদেশ, ড্র করেছে ১টিতে। মাশরাফি বাংলাদেশকে একটি টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে একটিতেই জিতিয়েছেন। যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচটি পুরো শেষ করার আগেই ইনজুরিতে পড়েন তিনি। পরে সে টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দেন সাকিব আল হাসান।

মাশরাফির ইনজুরিতে অধিনায়কত্ব পান সাকিব। উইন্ডিজদের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে জয় উপহার দেন তিনি। সাকিব সব মিলিয়ে ১৪টি টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে জয় পেয়েছেন ৩টিতে, বাকি ১১টি হেরেছেন।  

টেস্ট ইতিহাসে বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। সর্বোচ্চ ৩৪ টেস্টে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি জয় উপহার দেন ৭ টেস্টে। বাকি ২৭টির মধ্যে ১৮টি পরাজিত হওয়ার পাশাপাশি ৯টিতে ড্র করে টাইগাররা। এছাড়া তামিম একটি টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে হেরে যান। আর মাহমুদুল্লাহ ৬টিতে নেতৃত্ব দিয়ে ১টি জয়, ৪টি হার ও ১টি ড্র করে।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ