বিশ্বকাপে সহযোগী দেশগুলোকে চান রশিদ খান

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ জুলাই ২০১৯, ০০:৩১

২০১৯ থেকে বিশ্বকাপ ক্রিকেট হয়ে যাবে ১০ দলের। এ সিদ্ধান্ত চার বছর আগেই নিয়ে রেখেছিল আইসিসি। একই ভাবে ২০২৩ বিশ্বকাপও হবে ১০ দল নিয়ে। সিদ্ধান্তটি আগেই নিয়ে রেখেছে আইসিসি।

দশ দলীয় বিশ্বকাপ শেষ হয়েছে এক সপ্তাহ হলো। বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আভিজাত্য বজায় রাখতে এবং ক্রিকেটের বিশ্ব আসরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়াতেই নাকি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আইসিসি।

কিন্তু সদ্য আফগানিস্তানের অধিনায়কত্ব পাওয়া রশিদ খান মনে করেন, আইসিসির এই সিদ্ধান্তের ফলে ক্রিকেটের উন্নতির দিক থেকে পিছিয়ে পড়ছে সহযোগী দেশগুলো। ২০২৩ বিশ্বকাপের পর সহযোগী দেশগুলোকেও ওয়ানডে বিশ্বকাপে দেখতে চান রশিদ।

ক্রিকইনফোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ নিয়ে কথা বলেছেন রশিদ। তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল ২০২৩ বিশ্বকাপে এ টুর্নামেন্টে আরও বেশি সহযোগী দেশের অংশগ্রহণ দেখতে চান কি না?

জবাবে রসিদ বলেন, অবশ্যই। এটা বিশ্বকাপকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলবে। বড় দলগুলোর বিপক্ষে এসব দল ভালো করলে অতীতে দেখেছি সহযোগী দলগুলো পূর্ণ সদস্যের দলকে হারিয়ে দিয়েছে। যেমন ধরুন আয়ারল্যান্ড ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে। এটাই হয়ে থাকে। সহযোগী দলগুলোও ভালো খেলতে পারে। ওরা কঠোর পরিশ্রম করছে ও বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন দেখছে। তাই আমি অবশ্যই সব সহযোগী দেশগুলোকেই দেখতে চাই বিশ্বকাপে। এটা হলে ওরা বুঝতে পারবে ক্রিকেটে উন্নতির জন্য ওদের কতটা দক্ষতা প্রয়োজন।

বিশ্বক্রিকেটে সবচেয়ে উদীয়মান দেশ আফগানিস্তান। কিন্তু এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের প্রমাণে চরম ব্যর্থ হয় দলটি। একটি ম্যাচও জিততে পারেনি তারা।

বিশ্বকাপের আগেই অধিনায়ক বিতর্কে জড়ায় আফগান ক্রিকেট বোর্ড। আসগর আফগানকে সরিয়ে অধিনায়ক করা হয় গুলবাদিন নাইবকে। কিন্তু বিশ্বকাপের পরই অধিনায়কত্ব হারান নাইব। দলের নতুন অধিনায়ক করা হয় রশিদ খানকে।

অধিনায়ক নির্বাচিত হওয়ার পর ক্রিকইনফোকে একটি সাক্ষাতকার দিয়েছেন রশিদ খান। সেখানে নানা প্রসঙ্গের সাথে উঠে আসে বিশ্বকাপের পরবর্তী আসর নিয়ে।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ