আবাহনীর বিপক্ষে অবশেষে জয় পেলো মোহামেডান

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ জুলাই ২০১৯, ০০:৩১

এই শতকের শুরুতেও আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ নিয়ে উত্তেজনা কাজ করতো সারাদেশের ফুটবলপ্রেমী মানুষের মধ্যে। দুই দলের সমর্থকদের মধ্যে দেখা যেতো কথা-পাল্টা কথার লড়াই। মাঠে থাকতো একটা যুদ্ধ যুদ্ধ আমেজ। খেলা হতো টানটান উত্তেজনায় ভরপুর। সেই দিন অবশ্য এখন আর নেই। দেশের ফুটবলও হারিয়েছে তার জৌলুস। তবুও এখনো কিছু কিছু সমর্থক ও দর্শকের মাঝে আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ নিয়ে খোঁজ খবর রাখেন।

আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচও গত চার বছরে একপেশে ছিলো। কিন্তু এবার আর আবাহনী পারেনি তাদের জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে। ১৪৯৬ দিন পরে আবাহনীর বিপক্ষে জয় পেলো মোহামেডান।

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর কাছে হেরে আবাহনীর শিরোপা ধরে রাখার আশা শেষই বলা যায়। ২১ ম্যাচে ৫১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে তারা। এক ম্যাচ কম খেলে বসুন্ধরা কিংসের সংগ্রহ ৫৮ পয়েন্ট। আর তিন পয়েন্ট পেলেই শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যাবে নবাগত দলটির। ২০ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে মোহামেডানের অবস্থান নবম।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ১৬ মিনিটে এগিয়ে যায় মোহামেডান। মালির ফরোয়ার্ড সুলেইমানে দিয়াবাতের পাস থেকে গোল করেন তকলিছ আহমেদ। বিরতির ঠিক আগে আবার স্ট্রাইকার তকলিসের লক্ষ্যভেদ। তার শট আবাহনীর ডিফেন্ডার টুটুল হোসেন বাদশার শরীরে লেগে জড়িয়ে যায় জালে।

বিরতির পরও আবাহনী ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। ৫০ মিনিটে একক প্রচেষ্টায় বক্সে ঢুকে স্কোরলাইন ৩-০ করেছেন দিয়াবাতে। ৭২ মিনিটে দিয়াবাতের ক্রস থেকেই হেড করে ম্যাচের শেষ গোলদাতা জাহিদ হাসান এমিলি। কিছুক্ষণ পর আফগান ডিফেন্ডার মাসিহ সাইগানির শট সাইড বারে বাধা পেলে সান্ত্বনার গোলও পায়নি আবাহনী।

খেলা শেষে মোহামেডানের কোচ শন লেন বলেছেন, ‘আজকে আমার দল দুর্দান্ত খেলেছে। এই জয়ের কৃতিত্ব সবার। আমরা ধীরে ধীরে উন্নতি করছি। সামনের ম্যাচে আমাদের দল আরও ভালো খেলবে।’

শিরোপা সম্ভাবনা প্রায় শেষ হয়ে যাওয়ায় আবাহনীর কোচ মারিও লেমস ভীষণ হতাশ, ‘আমরা কল্পনাও করিনি এত বড় ব্যবধানে হারবো। ম্যাচের শুরু থেকেই আমাদের দল ভালো খেলতে পারেনি। অন্যদিকে মোহামেডান খুবই ভালো খেলেছে। বিশেষ করে তাদের আক্রমণভাগ ছিল দুর্দান্ত।’

একই মাঠে দিনের আগের ম্যাচে রহমতগঞ্জ ৩-২ গোলে বিজেএমসিকে হারিয়েছে। ২০ ম্যাচ থেকে রহমতগঞ্জের সংগ্রহ ১৯ পয়েন্ট। এক ম্যাচ বেশি খেলে বিজেএমসির পয়েন্ট ৮।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ