অস্ট্রেলিয়াকে একাই টানছেন স্মিথ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০১৯, ১৮:১২ | আপডেট : ১১ জুলাই ২০১৯, ২০:১৪

ইংল্যান্ড বিশ^কাপের ফাইনালে উঠার জন্য শুরুতে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নামে অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু শুরু থেকেই ব্যাটিং বির্যয়ে দলটি। তবে এখন পর্যন্ত দলকে একটাই টানছেন সাবেক অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ৩৫ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫৭ রান। মাঠে অপরাজিত আছেন স্টিভেন স্মিথ (৬৭ রান) ও প্যাট কামিন্স।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বার্মিংহামের এজবাস্টনে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। ম্যাচটি শুরু হয়েছে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায়। সরাসরি সম্প্রচার করছে বিটিভি, গাজী টিভি, মাছরাঙা চ্যানেল ও স্টার স্পোর্টস ওয়ান।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নামা অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে শুরুতেই আঘাত হানেন ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চার। তার প্রথম ওভারের ১ম বলেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন অ্যারন ফিঞ্চ। আউট হবার আগে তিনি করেন শূন্য রান।

এর পরের ওভারে ক্রিস ওয়াকসের বলে জনি বেয়ারস্টোর হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেন অস্ট্রেলিয়ার নির্ভরযোগ্য ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। আউট হবার আগে তিনি করেন ১১ বলে ৯ রান।

এরপর দলের হাল ধরতে মাঠে আসেন পিটার হ্যান্ডসকোব। চেষ্টা করেন স্মিথের সাথে জুটি গড়তে। কিন্তু ব্যক্তিগত ৪ রানে সেই ক্রিস ওয়াকসের বলেই বোল্ড আউট হন পিটার হ্যান্ডসকোব।

১৪ রানে যেখানে ৩ উইকেট নেই, সেখানে অস্ট্রেলিয়ার শেষটাই আজ দেখে ফেলেছিল সবাই। ম্যাচ শেষে পরিস্থিতি কি দাঁড়ায়, সেটা এখনই বলা না গেলেও, অস্ট্রেলিয়া যে এমনি এমনিই ম্যাচটা ছেড়ে দেবে না, তা বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন স্টিভেন স্মিথ এবং অ্যালেক্স ক্যারি। দু’জনের ব্যাটে গড়ে ওঠে ১০৩ রানের জুটি। ১৪ রান থেকে দু’জন অস্ট্রেলিয়াকে নিয়ে যান ১১৭ রান পর্যন্ত।

কিন্তু ২৮তম ওভারে বোলিং করতে এসেই ইংলিশ লেগ স্পিনার আদিল রশিদের মায়াবী ঘূর্ণি ফাঁদে পড়ে পরিবর্তিত ফিল্ডার জেমস ভিন্সের হাতে ক্যাচ দেন উইকেটে সেট হয়ে যাওয়া অ্যালেক্স ক্যারে। ৭০ বল খেলে ৪৬ রান করে আউট হন তিনি।

এরপর একই ওভারের শেষ বলে আদিল রশিদের বলটা ঠিকমত বুঝতে পারেননি মার্কাস স্টোয়ানিস। তার বল পায়ে লাগার পরই জোরালো আবেদন করেন আদিল রশিদ। আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা অনেক্ষণ সময় নিয়ে এরপর ধীরে ধীরে আঙ্গুল তোলেন। তার আউট দেয়ার স্টাইল দেখেই মনে হচ্ছিল যেন, ইচ্ছার বিরুদ্ধে আউটটা দিয়েছেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার দুর্ভাগ্য, রিভিউ বাকি ছিল না, তাই রিভিউর আবেদনও করতে পারেনি তারা।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ