দ্বিতীয় টেস্টেই প্রথম জয় আফগানিস্তানের

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ মার্চ ২০১৯, ১৫:০৩

টেস্ট ক্রিকেটে নাম লেখানোর পর প্রথম জয় পেতে বেশি দিন অপেক্ষা করতে হলো না আফগানিস্তান ক্রিকেট দলকে। গত বছরের জুনে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেকের ৯ মাসের মাথায় নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই প্রথম জয়ের স্বাদ পেয়ে গেল আসগর আফগানের দল।

ভারতের দেরাদুনের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে একমাত্র টেস্টটি আফগানিস্তান জিতেছে ৭ উইকেটে। নিজেদের ইতিহাসের মাত্র দ্বিতীয় টেস্টেই প্রথম জয়ের স্বাদ পেল গত বছর ক্রিকেটের সবচেয়ে অভিজাত সংস্করণে পা রাখা আফগানিস্তান।

আফগানিস্তানের চেয়ে কম ম্যাচ খেলে প্রথম টেস্ট জয় পেয়েছে শুধু অস্ট্রেলিয়াই। অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল ইতিহাসের প্রথম টেস্টই। আফগানিস্তানের মতো নিজেদের দ্বিতীয় টেস্টে প্রথম জয় পেয়েছিল ইংল্যান্ড ও পাকিস্তান।
১৪৭ রানের ছোট লক্ষ্য তাড়ায় সোমবার চতুর্থ দিনে জয়ের জন্য আফগানিস্তানের দরকার ছিল ১১৮ রান, আর আয়ারল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ৯ উইকেট। প্রথম টেস্ট জয়ের সুযোগ ছিল দুই দলের সামনেই। গত বছর অভিষেকের পর দুই দলেরই যে এটি দ্বিতীয় টেস্ট!

তবে আইরিশদের কোনো সুযোগই দেননি রহমত ও ইহসানউল্লাহ। এই দুজনের ফিফটিতে আফগানরা জয় নিশ্চিত করেছে লাঞ্চের আগেই। জয়ের কাছে গিয়ে রহমত ৭৬ রানে আউট হলেও ইহসানউল্লাহ শেষ পর্যন্ত ৬৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

ইহসানউল্লাহ ১৬ ও রহমত ১ রান নিয়ে দিন শুরু করেছিলেন। দিনের তৃতীয় ওভারেই আউট হতে পারতেন ইহসানউল্লাহ। জর্জ ডকরেলের বলে শর্ট এক্সট্রা কাভারে ক্যাচ দিয়েছিলেন তিনি, কিন্তু ক্যাচটা নিতে পারেননি স্টুয়ার্ট থম্পসন। ইহসানউল্লাহ তখন ১৯ রানে ব্যাট করছিলেন।

সেই ক্যাচ ফেলার চড়া মূল্যই দিতে হয়েছে আইরিশদের। জীবন পেয়ে দলকে এগিয়ে নেন ইহসানউল্লাহ। তাকে সঙ্গ দেন রহমত। ৪৬ থেকে ডকরেলকে চার হাঁকিয়ে রহমত ফিফটি তুলে নেন ৭৬ বলে। ইহসানউল্লাহ প্রথম ফিফটি পেতে খেলেন ১০৯ বল। এই দুজনের ব্যাটে ৯ উইকেটেই ম্যাচ জিততে পারত আফগানিস্তান।

জয় থেকে ৩ রান দূরে থাকতে ক্যামেরন ডোওকে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হয়ে ফেরেন রহমত। তাতে ভাঙে ১৩৯ রানের বড় জুটি। পরের বলে অযথায় দুই রান নিতে গিয়ে রান আউটে কাটা পড়েন মোহাম্মদ নবী। অবশ্য পরের বলেই স্কয়ার লেগ দিয়ে চার হাঁকিয়ে জয় নিশ্চিত করেন হাসমতউল্লাহ শাহিদি।

প্রথম ইনিংসে ২ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করা রহমত এবার ১২২ বলে করেন ৭৬। তার ইনিংসে ছিল ১৩টি চার। ম্যাচসেরাও হয়েছেন তিনিই। ১২৯ বলে ৮ চার ও ২ ছক্কায় ৬৫ রানে অপরাজিত ছিলেন ইহসানউল্লাহ।

গত বছর বেঙ্গালুরুতে আফগানিস্তান তাদের অভিষেক টেস্টে ভারতের কাছে দুই দিনেই হেরেছিল ইনিংস ব্যবধানে। আর আয়ারল্যান্ড ডাবলিনে তাদের অভিষেক টেস্টে পাকিস্তানের কাছে ৫ উইকেটে হারলেও চার দিন লড়াই করেছিল। এবার প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতাই আইরিশদের ডোবাল। ব্যাটে-বলে দারুণ পারফরম্যান্সে আফগানরা পেল ঐতিহাসিক জয়।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ