সেই ‘কম্পাউন্ডারের ছেলে’ এবার ভারতের জাতীয় দলে

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০১:০৪ | আপডেট : ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০১:০৮

গত আইপিএল নিলামের পর খলিল আহমেদকে নিয়ে শোরগোল চলছিল। ঠিকমতো তার নামই জানতো না অনেকে। কিন্তু ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এই অচেনা তরুণকেই গত বছরের নিলামে ৩ কোটি রুপিতে কিনেছিল আইপিএলের দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ওই নিলাম নিয়ে বেশ হইচই পড়ে গিয়েছিল চারিদিকে। বেশি দামের পাশাপাশি খলিলের ব্যক্তিগত জীবনও ওই হইচই পড়ার কারণ।

ভারতের রাজস্থানের একটি চরম দরিদ্র পরিবারে জন্ম খলিলের। তার বাবা ছিলেন একজন কম্পাউন্ডার। 'নুন আনতে পান্তা ফুরায়' অবস্থা পরিবারের। বাবা চাচ্ছিলেন পরিবারের উপার্জনে শরিক হোক খলিল। কিন্তু খলিলের মনোযোগ ছিলো ক্রিকেটে। স্থানীয় কোচ ইমতিয়াজ আলি খান খলিলের বাবাকে বুঝিয়ে শুনিয়ে ক্রিকেটটা বন্ধ করতে দেননি। তবে খেলার অনুমতি দিলেও ক্রিকেট সরঞ্জাম কিনে দেওয়ার সামর্থ্য ছিল না খলিলের কম্পাউন্ডার বাবার। সেই ছেলেটা গত বছর আইপিএল নিলামে বিক্রি হয়েছিলেন ৩ কোটি রুপিতে!

আজ এর চেয়েও বড় বিস্ময় উপহার পেলেন খলিল ও তার পরিবার। ভারতের ওয়ানডে দলে ডাক পেয়েছেন ২০ বছর বয়সী এই পেস বোলার। এশিয়া কাপের জন্য আজ দল ঘোষণা করেছে ভারত। তাতে খলিল আহমেদের নামও রয়েছে।

ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলার সময়ই নির্বাচকদের নজরে এসেছিলেন খলিল। আইপিএলের সময় দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের সঙ্গে ছিলেন দুই বছর। ওই সময়টাতে ভারতের পেস কিংবদন্তি জহির খানের দীক্ষা পেয়েছেন খলিল। দীর্ঘদেহী এই পেসার বলেছিলেন, এটা বড় কাজে দিয়েছে তার জন্য।

বোলিংয়ে খলিলের বড় শক্তির জায়গা গতি। নিয়মিত ঘন্টায় ১৪০ কিলোমিটারের আশেপাশের গতিতে বোলিং করতে পারেন। চলতি বছরের শুরুতে সৈয়ত মুশতাক আলি ট্রফিতে ঘন্টায় ১৪৮ কিলোমিটার গতিতে বল ছুড়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন খলিল। ভুবনেশ্বর কুমারের ইনজুরিতে এই কারণেই হয়তো খলিলকে বেছে নিলেন ভারতীয় নির্বাচকরা!

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ