তুমি হাসলে, হাসে বাংলাদেশ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৫৭ | আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৬:৪১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
সব হারিয়েও যিনি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন গৌরবোজ্জ্বল সাফল্যের অধ্যায়ে, বর্ণাঢ্য সেই সংগ্রামী ব্যক্তিত্ব দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন আজ।  তাঁর জন্মদিনে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে সামাজিকমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে একটি বিশেষ ভিডিও গান।  ইতোমধ্যে গানটি মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। 

তুমি হাসলে, হাসে বাংলাদেশ - শিরোনামের বিশেষ এই গানচিত্রে উঠে এসেছে বঙ্গবন্ধুকন্যার যোগ্য নেতৃত্ব, দেশের উন্নয়নের কথা ও ছবি।  গানটির ভিডিওতে দেশের উন্নয়নের দৃশ্যমান চিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।  এতে শেখ হাসিনার অপুরণীয় অবদানের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।  এছাড়া, বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানাতে প্রধানমন্ত্রী ভূমিকার কথা বলা হয়েছে। যার কারণে গৌরবের সঙ্গে বিশ্বের বুকে উড়ছে বাংলাদেশের পতাকা।  

শুরুতে বঙ্গবন্ধুর কন্যা তুমি অস্বিত্বের শেকড়, থাকলে তুমি ভয় করি না বাধা কিংবা ঝড়- গানের এমন লাইন যে কারো মনে সাহস যোগাবে।  কারণ শত বাধা বিপত্তি মোকাবিলা করে শেখ হাসিনা দেশকে নিয়ে যাচ্ছেন উন্নয়নের চূড়ায়। এছাড়া, কিছু উন্নয়নের মধ্যে, পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও প্রত্যন্তঞ্চলে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা পৌঁছে দেয়ার মতো নানা দৃশ্য দেখানো হয়েছে।  এমন দৃশ্যের ভিডিও গান দেখলে মুহূর্তে যে কারো মন ভালো হয়ে যাবে। 

সাধারণের মাঝে অসাধারণ, তুমি এগিয়ে চলার অঙ্গীকার/ জননেত্রী থেকে তুমি, বিশ্ব নেত্রী তুমি বাংলার অহংকার/ উন্নয়নের জোয়ারে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ, তুমি প্রত্যায়ী তুমি আশা/ তুমি আমার বাংলাদেশ/ তুমি হাসঁলে, হাঁসে বাংলাদেশ- এমন সব কথা যুক্ত করা হয়েছে গানটিতে। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ৭৪ বছরে পা রাখলেন।  নন্দিত নেত্রী আজ স্ব-মহিমায় বাংলার কোটি মানুষের হৃদয়ে ভালোবাসার আসনে অধিষ্ঠিত।

১৯৪৭-এ দেশভাগের সময় ২৮ সেপ্টেম্বর টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতার কোলে জন্ম নেন শেখ হাসিনা।  জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ এই সন্তান ঢাকাতেই থাকতেন বাবার সঙ্গে।  রাজনৈতিক আবহের পরিবারে বেড়ে ওঠা এই নারী ছাত্রজীবন থেকেই সম্পৃক্ত হয়েছিলেন রাজনীতির সঙ্গে।

১৯৭৫ এ আকস্মিক ঝড়ে ছিন্ন ভিন্ন হয়ে যায় তার পরিবার।  স্বজনহারা শেখ হাসিনা তখন নতুন যুদ্ধের সম্মুখীন।  বৈরী পৃথিবীতে ৬ বছর নির্বাসিত থেকে ১৯৮১ সালে দেশে ফেরেন তিনি। 

ইতিহাসের চ্যালেঞ্জ নিতে ফিরেছিলেন তিনি।  ক্ষমতার মোহ পেছনে ফেলে চরম প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও মাত্র ৩৪ বছর বয়স থেকেই টানা ৪ দশক ধরে দায়িত্ব বয়ে চলছেন আওয়ামী লীগ প্রধান হিসেবে।

দীর্ঘ এই চলার পথে বার বার তাঁকে মুখোমুখি হতে হয়েছে মৃত্যুর।  কাঁটা বিছানো রক্ত রঞ্জিত পথ বেয়েই তাঁকে চলতে হয় দিনের পর দিন।  এখন পর্যন্ত ২০ বার তাঁকে মারার ষড়যন্ত্রকে পরাভূত করে দেশের জন্য কাজ করে চলেছেন এই আপোষহীন নেত্রী। 

দেশবাসীর অকুণ্ঠ ভালোবাসা আর নিরঙ্কুশ সমর্থনে শেখ হাসিনা বিশ্বের অন্যতম দীর্ঘকালীন নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ করে চলেছেন অবিচল নেতৃত্বে।  দেশের আর্থ-সামাজিক দৃঢ় অবস্থান আর উন্নয়নের মহা-কর্মযজ্ঞে পাল্টে যাওয়া বাস্তবতাই এখন বড় দৃষ্টান্ত তাঁর কর্মজীবনের।

 

এবিএন/ইমরান/জসিম/এসই   

এই বিভাগের আরো সংবাদ