বিশ্বের ব্যয়বহুল নগরীর তালিকায় ঢাকা ৬৬তম

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৭ জুন ২০১৮, ১৩:৫৬

ঢাকা, ২৬ জুন, এবিনিউজ : ব্রাসেলস, বার্লিন, বার্সেলোনা। অথবা ধরা যাক ডালাস, দিল্লি বা দোহা। জীবনযাত্রার ব্যয় হিসাব করলে এসব নগরীর তুলনায় ঢাকা নগরীর অবস্থান কোথায়?

অন্তত বিদেশিদের জীবনযাত্রার খরচ যদি ধরেন, তা হলে ঢাকা নগরী এদের সবার উপরে, অর্থাৎ ঢাকা অনেক বেশি ব্যয়বহুল নগরী।

মার্কার নামের একটি সংস্থা আবারও বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল নগরীগুলোর তালিকা প্রকাশ করেছে। ২০৯টি নগরীর সেই তালিকায় বিশ্বের অনেক উন্নত এবং ধনি দেশের বড় বড় নগরীকে পেছনে ফেলে ঢাকার অবস্থান ৬৬ নম্বরে।

বাংলাদেশের মতো একটি অনুন্নত এবং পিছিয়ে থাকা অর্থনীতির একটি দেশের রাজধানী শহর কেন এতটা ব্যয়বহুল? সেই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার আগে এক নজরে দেখে নেয়া যাক ব্যয়বহুল নগরীগুলোর তালিকায় কাদের অবস্থান কোথায়।

মার্কার ব্যয়বহুল নগরীর এই সূচক তৈরি করে কোন নগরীতে বিদেশিদের জীবনযাত্রার খরচের তুলনা করার জন্য। মোট দুশটি আইটেমের ব্যয় বিবেচনায় নেয়া হয়। এর মধ্যে আছে বাসস্থান, যাতায়ত, খাবার, বিনোদন থেকে শুরু করে নানা কিছুর দাম। এক কাপ কফি, এক বোতল পানি, এক লিটার পেট্রোল বা এক লিটার দুধ। মানদ- হিসেবে ধরা হয় নিউইয়র্ক নগরীকে। আর খরচের হিসাব তুলনা করা হয় মার্কিন ডলারে।

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল নগরী হংকং। দ্বিতীয় স্থানে টোকিও। তিন থেকে পাঁচ নম্বরে আছে যথাক্রমে জুরিখ, সিঙ্গাপুর এবং সোওল।

গত বছর অবশ্য অ্যাঙ্গোলার রাজধানী লুয়ান্ডা ছিল এক নম্বরে। এবার তারা চলে গেছে ছয় নম্বরে।

প্রথম দশটি স্থানে আরও আছে সাংহাই, এনডজামেনা, বেইজিং এবং বার্ন।

বিদেশিদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ৫টি নগরীর ৪টিই আছে এশিয়াতে। সেখানে চীনের বড় বড় শহরগুলোই আছে উপরের দিকে।

সবচেয়ে কম ব্যয়বহুল নগরী হচ্ছে তাশখন্দ। তিউনিস আর বিশকেকের পর তাদের অবস্থান।

এই সূচকে পুরো দক্ষিণ এশিয়া থেকে একটি মাত্র নগরী ঢাকার উপরে আছে। সেটি মুম্বাই (৫৫)। ভারত বা পুরো দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য নগরীগুলো ঢাকার অনেক পেছনে। ইয়াংগুন আছে ৯১ নম্বরে, দিল্লি ১০৩ নম্বরে, কলম্বো ১০৮, চেন্নাই ১৪৪, কলকাতা ১৮২, ইসলামাবাদ ১৯০ আর করাচি ২০৫ নম্বরে।

এর মানে হচ্ছে ৬৬ নম্বরে থাকা ঢাকা বিদেশিদের কাছে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্যয়বহুল নগরী।
খবর বিবিসি বাংলা

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ