না খেলেও রাশিয়া বিশ্বকাপে বাংলাদেশ!

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ জুন ২০১৮, ১৫:৪৫ | আপডেট : ০২ জুন ২০১৮, ১৬:০২

ঢাকা, ০২ জুন, এবিনিউজ : রাশিয়ায় বিশ্বকাপে বাংলাদেশ! চমক তো বটেই। চমকে যাওয়ার মতোই খবর। কিন্তু কীভাবে? এবার ফিফা বিশ্বকাপে মেসিদের জ্যাকেটে চেপে রাশিয়া পৌঁছে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এমনটাই ঘটতে চলেছে। যা নিয়ে রীতিমতো গর্বিত বাংলাদেশ।

আর দিন ১৫ বাকি বিশ্বকাপের। ইতোমধ্যেই সব দল তৈরি রাশিয়ার বিমান ধরার জন্য। আর তাদের গায়ে চেপেই সেই বিমানে উঠে পড়েছে বাংলাদেশ। কেউ মেসি তো কেউ ইনিয়েস্তা আবার কেউ চেপে পড়ছে মুলারের গায়ে। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই বড় বাস্তব। জার্মানি, স্পেন, আর্জেন্টিনাসহ বিশ্বের একাধিক দেশের কিট স্পন্সর একটি বেসরকারি সংস্থা। সেই সংস্থা বাংলাদেশ থেকে তৈরি করে নিয়েছে আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো, স্পেন, জার্মানি দলের অফিসিয়াল জ্যাকেট।

এই দেশগুলোর ফুটবলারদের গায়ে যে জ্যাকেট থাকবে সেটি রাশিয়া থেকে অনেক দূরের দেশ বাংলাদেশে তৈরি। বাংলাদেশের ফিফা র‌্যাংকিং ১৯৭। ফুটবল বিশ্বকাপ খেলতে না পারলেও সব ফেভারিট দলের খেলোয়াড়দের গায়ে থাকছে বাংলাদেশের তৈরি জ্যাকেট। এসব জ্যাকেট পরেই ফুটবল বিশ্বকাপের মঞ্চে দেখা যাবে বিশ্বের সেরা সেরা তারকাদের। যার গায়ে লেখা থাকবে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’।

চট্টগ্রামে অবস্থিত কর্নফুলি শু ইন্ডাস্ট্রিজ নামের একটি কোম্পানিতে তৈরি হয়েছে জ্যাকেটগুলো। ফুটবল বিশ্বকাপে এটাই বড় প্রাপ্তি বাংলাদেশের। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে শুরু হয়েছিল এই জ্যাকেট তৈরির কাজ। কাজ শেষ হয় নভেম্বরে। ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে সংস্থার হাতে পৌঁছে যায় সব জ্যাকেট। সেখান থেকে চলে যায় বিভিন্ন দলের কাছে।

সবার জ্যাকেটই আলাদা দেখতে। আর্জেন্টিনার জ্যাকেটে রয়েছে দুটি নক্ষত্রচিহ্ন। কারণ দুবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মেসির দেশ। এবার মেসির হাত ধরে সেই লক্ষ্যে নামবে নীল-সাদা ব্রিগেড। এটাই হতে পারে মেসির শেষ বিশ্বকাপ। তার গায়েও উঠল বাংলাদেশের তৈরি জ্যাকেট। আবার জার্মানি যেহেতু চারবার বিশ্বকাপ জিতেছে তাই তাদের জ্যাকেটে রয়েছে ৪টি নক্ষত্রচিহ্ন।

বিশ্বের সেরা ফুটবলারদের জন্য জ্যাকেট তৈরি করতে পেরে খুশি বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে না থেকেও থাকবে মেসি-মুলারদের মতো তারকাদের সঙ্গে একই মঞ্চে থাকবে বাংলাদেশ। এটা দেশের জন্য গর্বের। যে শ্রমিকরা দিন-রাত পরিশ্রম করে এই জ্যাকেট তৈরি করেছেন, তারা যখন দেখবেন মেসিদের গায়ে তাদেরই তৈরি জ্যাকেট, তখন তা দেখে কার না গর্বে বুক ভরে উঠবে।

এবিএন/মতিউর তানিফ/জসিম/এমসি

এই বিভাগের আরো সংবাদ