আজকের শিক্ষার্থীরাই আগামী দিনে দেশকে গড়ে তুলবে : প্রধানমন্ত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৫১ | আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫:৪০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের ছেলেমেয়েরা মেধাবী। প্রযুক্তিভিত্তিক শিক্ষার মাধ্যমে তারা আরও মেধাবী হয়ে গড়ে উঠছে। ভবিষ্যতে দেশটা কীভাবে চলবে তার একটা পরিকল্পনা আমরা রেখে যাচ্ছি। আজকে যারা শিক্ষার্থী, আগামী দিনে তারাই দেশটাকে গড়ে তুলবে। 

আজ বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে আয়োজিত ‘প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক অনুষ্ঠানে’ তিনি এ কথা বলেন।

স্বর্ণপদকপ্রাপ্তদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মান উন্নয়নে আরও কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায়- সে বিষয়ে তোমরা সুপারিশ করবে। শিক্ষার মানোন্নয়নে যা যা করা প্রয়োজন আমরা তাই করব। আমরা প্রতিটি জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় করে সারাদেশে শিক্ষার প্রসার ঘটাতে চাই। আটটি বিভাগে আমরা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। এ ছাড়া জেলা পর্যায়েও আমরা বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তুলতে চাই।

তিনি বলেন, বিজ্ঞানভিত্তিক শিক্ষায় এক সময় আমাদের ছেলেমেয়েরা ভয় পেতো, কিন্তু এখন আর ভয় পায় না। বিজ্ঞানে তারা অনেক সাফল্য দেখাচ্ছে। আমরা ২১০০ সালের যে ডেল্টাপ্ল্যান গ্রহণ করেছি সে অনুযায়ী আমাদের ছেলেমেয়েরা বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে পারবে- এ বিশ্বাস আমার আছে। আজ ছেলেদের চাইতে মেয়েরা বেশি স্বর্ণপদক পেয়েছে। ছেলেরা পিছিয়ে থাকবে কেন? আগামীতে ছেলেরা যেন কমপক্ষে সমান সমান হয় সে ব্যবস্থা করতে হবে। দুষ্টমি না করে ছেলেদের আরও পড়াশোনায় মনোযোগী হতে হবে।

শিক্ষার সম্প্রসারণ ও উন্নত শিক্ষার জন্য যা যা প্রয়োজন সরকার সব করবে জানিয়ে শিক্ষাবিদদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চিন্তা করে দেখেন শিক্ষার মান উন্নত করার জন্য এবং শিক্ষিত জাতি গড়ে তোলার জন্য কী কী প্রয়োজন। যা প্রয়োজন আমরা তাই করবো এবং সেটিই আমাদের নীতি।

দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষার প্রসারটা আমরা সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই। সেভাবে আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে যাচ্ছি। পড়াশোনাকে বহুমুখীকরণ করে, যাতে দেশে-বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

তিনি বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাস করে দিয়েছি। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রমের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হয়েছে। যেটা এক সময় ছিল না। যে যার মতো একখানা বিশ্ববিদ্যালয় করে, এক বিল্ডিংয়ে দেখা যায় তিনটা বিশ্ববিদ্যালয়। এসব বিশ্ববিদ্যালয় কি শিক্ষা দেয় আমি জানি। আমার কাছে অবাক লাগতো সে সময়। এখন একটা ডিসিপ্লিনে নিয়ে আসার চেষ্টা নিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়কে আমাদের মঞ্জুরি কমিশন যেন খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী নিয়োগ সংক্রান্ত একটা অভিন্ন নীতিমালা করা। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে কত ছাত্রছাত্রী থাকবে সেটিও সীমিত করে দেওয়া। কারণ ঢালাওভাবে ভর্তি করলে পড়াশোনা কীভাবে ঠিকমতো হবে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান যাতে মানসম্মত শিক্ষা দিতে পারে সেটি নিশ্চিত করা। আর এখন এটা খুব কঠিন কাজ না।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে আরও শক্তিশালী করা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের পরিধি আরও বৃদ্ধি করা, লোকবল বৃদ্ধি করা, দক্ষতা বৃদ্ধি করা, আমরা যে এতগুলো বিশ্ববিদ্যালয় করে দিচ্ছি সেটা যেন ভালোভাবে নজরদারি করতে পারে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে এটাকে আরও শক্তিশালী করা প্রয়োজন। তার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি এবং নেব।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা আমরা বলছি। এখান থেকে আমাদের ছেলেমেয়েদের দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। প্রযুক্তিভিত্তিক শিল্প গড়ে উঠছে এবং সেটি আরও বিকশিত হবে।

এসএসসি পর্যন্ত বিভাগ থাকার প্রয়োজন নেই জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন,  ক্লাস নাইন থেকে কোন বিভাগে যাবে সেটা ভাগ করে দেওয়া হয়। আমার মনে হয় এই ভাগটা থাকার কোনো প্রয়োজন নেই। এসএসসি পরীক্ষা পর্যন্ত সব সাবজেক্টেই তারা পড়তে পারে। এসএসসির পরে গিয়ে যদি বিভক্তি হয় সেটা ভালো। তা হলে অন্তত মেধা বিকাশের একটা সুযোগ পায়।

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন। ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহিদুল্লাহ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক এবং উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন স্বাগত বক্তৃতা করেন।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব ফিশারিজ টেকনোলজির শিক্ষার্থী মো. মোবারক হোসেন এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজের শারমিন সুলতানা অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিজয়ীদের পক্ষে নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তৃতা করেন।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড.আহমদ কায়কাউস এবং ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাবৃন্দ, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এবং সচিববৃন্দ, জাতীয় অধ্যাপক, সাবেক ইউজিসি চেয়ারম্যানগণ, বর্তমান এবং সাবেক ইউজিসি সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য এবং শিক্ষবিদগণ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ইউজিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ আমন্ত্রিত অতিথিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে ১৬৩ শিক্ষার্থীকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। দেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের কৃতি শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশ ও অধ্যয়নে উৎসাহ প্রদানের জন্য ইউজিসি ২০০৫ সালে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রবর্তন করে।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ