শেখ হাসিনায় আস্থা ৮৬ শতাংশ জনতার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:০৬

আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর ৮৬ শতাংশ জনগণের আস্থা আছে। ‘রিসার্চ ইন্টারন্যাশনাল’ নামের একটি বেসরকারি সংস্থার জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। 

আজ রবিবার (২৬ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের প্রথম এক বছরের কার্যক্রম’ শীর্ষক এ জরিপের প্রতিবেদন সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, দেশব্যাপী দৈবচয়ন পদ্ধতিতে মোবাইল কলের মাধ্যমে করা এ জরিপে অংশ নেন ২ হাজার ২৬৬ জন। যদিও মোবাইল কল করা হয় ৮ হাজার ৩৯ জনকে। এর মধ্যে কল ধরেন ৫ হাজার ৪২৯ জন। যারা কল ধরেন তাদের মধ্যে ৪১ দশমিক ৭ শতাংশ মতামত দেন।

জরিপের তথ্য তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়, মতামতদাতাদের মধ্যে ৮০ শতাংশই আওয়ামী লীগের বর্তমান মেয়াদের সরকারের প্রথম এক বছরকে আগের তুলনায় ভালো বলে উল্লেখ করেছেন।

৮৫ শতাংশ উত্তরদাতা সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার পরিচালনায়। তবে অসন্তোষ প্রকাশ করেন ৩ শতাংশ। গত ৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে তার ওপর আস্থা রাখতে যে আহ্বান জানান, সে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ৮৬ শতাংশ উত্তরদাতা জানান, তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর আস্থাশীল। আস্থাহীনতার কথা জানান ৩ শতাংশ উত্তরদাতা। এক্ষেত্রে মতামত দেননি ১১ শতাংশ অংশগ্রহণকারী।

জরিপে সবচেয়ে কার্যকর মন্ত্রণালয় হিসেবে ৩০ শতাংশ উত্তরদাতা শিক্ষা, ২৮ শতাংশ উত্তরদাতা যোগাযোগ (সড়ক পরিবহন ও সেতু), ১৬ শতাংশ উত্তরদাতা স্বরাষ্ট্র, ৯ শতাংশ উত্তরদাতা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং বাকিরা অন্যান্য মন্ত্রণালয়কে বেছে নেন।

দক্ষতা ও সাফল্যের ক্ষেত্রে উত্তরদাতারা সর্বাগ্রে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে (৩৬ শতাংশ) এবং তার পর শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিকে (২৯ শতাংশ) বেছে নেন।

জরিপে অংশ নেয়া ৬৫ শতাংশ উত্তরদাতা বর্তমানে বিএনপির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে কোনো আলোচনাই করতে চাননি। ২৫ শতাংশ উত্তরদাতা বিএনপির কার্যক্রম নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং ৬ শতাংশ উত্তরদাতা প্রকাশ করেন সন্তোষ।

জরিপ চালানো সংস্থাটি মনে করছে, রাজনীতিতে বিএনপি গুরুত্ব হারাচ্ছে। জাতীয় পার্টির ব্যাপারেও উত্তরদাতাদের মধ্যে আগ্রহ কম পরিলক্ষিত হয়েছে। এমতাবস্থায় জরিপে অংশ নেয়া ৪৮ শতাংশ উত্তরদাতা দেশে একটি শক্তিশালী বিরোধী দল থাকার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। তবে দরকার নেই বলে মতামত দেন ৩২ শতাংশ উত্তরদাতা। ২০ শতাংশ এ বিষয়ে মতামত দেননি।

সংবাদ সম্মেলনে জরিপের ফলাফল উপস্থাপন করেন অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী গবেষক অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রিসার্চ ইন্টারন্যাশনালের চিফ কো-অর্ডিনেটিং অফিসার ও গবেষক কাজী আহমেদ পারভেজ, প্রকল্প সমন্বয়কারী মোহাম্মদ মোফাজ্জল হুসাইন প্রমুখ।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ