‘ভোটে কারচুপি সম্ভব নয় বলেই ইভিএম বিরোধিতা করছে বিএনপি’

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:১৫ | আপডেট : ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:১১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপির নির্বাচনে আসা না আসার বিষয়ে সরকারের কিছু করার নেই। এটা তাদের নিজেদের ব্যাপার। তাদের সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনাও হবে না। আজ রবিবার (০২ সেপ্টেম্বর) বিমসটেক সম্মেলন নিয়ে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে ভোট কারচুপি করতে পারবে না বলেই বিএনপি ইভিএমের বিরোধিতা করছে।

বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী সাত দেশের জোট বিমসটেকের চতুর্থ শীর্ষ সম্মেলন শেষে ঢাকায় ফিরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের প্রশ্নোত্তর পর্বে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

রোববার বিকালে গণভবনে অনুষ্ঠিত এ সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারতসহ পৃথিবীর অনেক গণতান্ত্রিক দেশে সংসদ বহাল রেখেই নির্বাচন হয়। নতুন সরকার আসার পর সেটা স্বাভাবিক নিয়মেই শেষ হয়ে যায়। এখানেও তাই হবে।

‘বিএনপি যতোই হুংকার দিক, আন্দোলন করুক না কেন, যথাসময়েই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কেউ তা ঠেকাতে পারবে না।’

এসময় ইভিএম নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন: ‘বিএনপি এর বিরুদ্ধে খুব সোচ্চার। তারা করচুপির ভালো টেকনিক জানে। ইভিএম ব্যবহার করলোতো আর কারচুপি করতে পারবে না।’

‘আমরা নির্বাচন নিয়ে অনেক গবেষণা করেছি কিন্ত আমরা এখনো তাদের সেই পদ্ধতিটা ধরতে পারিনি। তাদের অর্থের অভাব নেই তারা সবকিছু কিনতে পারে। ইইভএম হলে তার একটার জায়গায় দুটো তিনটা সিল মারতে পারবে না।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা চাই প্রযুক্তির উন্নয়নের জন্য ইভিএমের ব্যবহার শুরু হোক। এটাইতো শেষ কথা না। এতে আপত্তির কী আছে এতো। এখন যদি অনলাইননে টাকা পাঠাতে পারেন তাহলে ভোট দিতে পারবে না কেনো। সবচেয়ে মূল্যবান হলো অর্থ। সেটার উপর বিশ্বাস করতে পারলে ভোটের উপর নয় কেন।’

তবে তাড়াহুড়া করে ইভিএমকে চাপিয়ে দেয়া যাবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন: নির্বাচনের ক্ষেত্রে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। আমাদের সবাই এখন অনলাইনে সবকিছু করছি। এটা ঠিক যে টেকনোলজির যেমন সুবিধা দেয়। তেমনি অসুবিধাও আছে। তবে তাড়াহুড়া করে এটাকে চাপিয়ে দেয়া যাবে না।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ