সরকার তার নৈতিক অবস্থান হারিয়েছে : ডা. জাফরুল্লাহ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৬:৫১

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘আজকে এখানে মানুষের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার হরণ করা হচ্ছে, মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে, এর চেয়ে বড় দুর্নীতি আর কী হতে পারে? স্বাস্থ্যের গাড়িচালক মালেকের দোতলা, সাততলা দুইটা বাড়ি, আফজালের ১০টা বাড়ি। তার থেকে অনেক বেশি দুর্নীতি আমি মনে করি সরকারের মধ্যে। সরকার তার নৈতিক অবস্থান হারিয়েছে।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমণ্ডির গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে এক সংবাদ সম্মেলনে ডা. জাফরুল্লাহ এসব কথা বলেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও বিভিন্ন পেশাজীবীকে গ্রেপ্তার-নিপীড়ন-হয়রানির প্রতিবাদ ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় জাফরুল্লাহ চৌধুরী ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘ভিপি নুর সে যদি অন্যায় করে থাকে, সেটার বিচার হবে। তাকে হয়রানি করা যাবে না। সরকার জনগণকে বের হতে দিচ্ছে না। সেজন্য দেশটা নৈরাজ্যের দিকে চলছে।’

এ জাতীয় নীতি কখনো দেশের জন্য মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না উল্লেখ করে জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরো বলেন, আজকে প্রয়োজন ন্যায়-নীতি ও সুষ্ঠু সুশাসন। সুশাসন না হলে হবে না।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ‘অগণতান্ত্রিক ও অনৈতিক’ আখ্যা দিয়ে জাফরুল্লাহ আরো বলেন, ‘এটা বিনা বিচারে হত্যার শামিল। রাজনীতিবিদদের সহনশীল হতে হবে। সমালোচনা সহ্য করতে হবে। সরকার নিজেই দুর্নীতিগ্রস্ত। কিন্তু তারা অন্ধ হয়ে গেছে। তারা ভুলভ্রান্তি দেখতে পাচ্ছে না। ফলে সবার কণ্ঠরোধ করছে।’

পেঁয়াজ আমদানি ইস্যুতে ভারতের সমালোচনার পাশাপাশি বাংলাদেশের কূটনৈতিক অবস্থান নিয়ে সমালোচনা করে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘ভারত হঠাৎ অনৈতিকভাবে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। পঁচা পেঁয়াজ পাঠায়। ভারতের সঙ্গে কিসের বন্ধুত্ব? যে বন্ধু আমার স্বার্থ দেখে না, একতরফা- তার সঙ্গে বন্ধুত্ব হতে পারে না। শোষকের সঙ্গে শাসিতের বন্ধুত্ব হয় না।’

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ