মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২০, ২০:৩৫ | আপডেট : ০৬ জুন ২০২০, ২০:৪৫

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

গতকাল শুক্রবার (৫ জুন) ব্রেন স্ট্রোকের পর সফল অস্ত্রোপচার শেষে তিনি রাজধানীর শ্যামলীতে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। শনিবার (৬ জুন) দুপুরে এ প্রতিবেদন লেখার পর্যন্ত তার জ্ঞান ফেরেনি বলে জানা গেছে।

মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে তানভীর শাকিল জয় বলেন, ৭২ ঘণ্টা পার হওয়ার আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না। এরপর চিকিৎসকরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

এদিকে নাম প্রকাশ না করা শর্তে সংশ্লিষ্ট এক চিকিৎসক বলেন, মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা ‘সংকটাপন্ন’। রোববার (৭ জুন) ভেন্টিলেশন খুলে দিয়ে দেখা হবে কোনো জটিলতা রয়েছে কি-না। প্রয়োজনে আরও ২৪ ঘণ্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তার সু-চিকিৎসার বিষয়ে সবাই তৎপর রয়েছেন।

প্রখ্যাত নিউরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. কাজী দ্বীন মোহাম্মদ জানিয়েছেন, মোহাম্মদ নাসিমের ডায়াবেটিস আছে। ব্লাড প্রেশারও আছে। এরমধ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরপর আবার ব্রেন স্টোক করেছেন। সবমিলে তার অবস্থা সংকটাপন্নই।

শনিবার (০৬ জুন) নাসিমের চিকিৎসায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। এরইমধ্যে সেই বোর্ড মিটিং করে তাকে ৭২ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরপর মিটিং শেষে বোর্ডের সদস্য ডা. দ্বীন মোহাম্মদ এ কথা বলেন।

মিটিং শেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক পরিস্থিতি ডিপ ক্রিটিক্যাল। ৭২ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণ সময় না গেলে কিছু বলা যাচ্ছে না।

শনিবার বিকেল সোয়া ৫টার দিকে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, বোর্ড মিটিংয়ে মোহাম্মদ নাসিমকে ৭২ ঘণ্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। বর্তমানে তিনি অচেতন অবস্থায় আছেন। তাকে আইসিইউতে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে মোহাম্মদ নাসিমের চিকিৎসায়। বোর্ডে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ ও অধ্যাপক ডা. দ্বীন মোহাম্মদ রয়েছেন।

বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, অপারেশনের পর চিকিৎসকরা মোহাম্মদ নাসিমকে ৪৮ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রাখেন। এবার তা বাড়ানো হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা এখনও স্থিতিশীল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিচ্ছেন। তার জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমরা দেশবাসীর কাছে দোয়া চাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, তার উন্নত চিকিৎসার ব্যাপারে মেডিক্যাল বোর্ড গঠন হয়েছে। তারা কেবলই মিটিং শেষ করেছেন। মিটিংয়ে তার পরবর্তী উন্নত চিকিৎসার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা।

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফোনে তানভির শাকিল জয় ও চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে মোহাম্মদ নাসিমের খোঁজখবর নিয়েছেন। নাসিমের রোগমুক্তির জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছে তার পরিবার।

করোনাভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে ১ জুন (সোমবার) দুপুরে নাসিমকে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরে পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসে।

শুক্রবার (৫ জুন) সকালে তার ব্রেন স্ট্রোক হয়। শ্যামলীতে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে তার অস্ত্রোপচার হয়।

তানভীর শাকিল জয় সকালে জানিয়েছিলেন, করোনা আক্রান্তের পর থেকে বাবার অবস্থা উন্নতির দিকে যাচ্ছিল। শুক্রবার সকালে হঠাৎ করে ব্রেন স্ট্রোক হয়।

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারে নিহত জাতীয় চার নেতার একজন শহীদ এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিম আওয়ামী লীগের ১৯৯৬-২০০১ সরকারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মন্ত্রিসভায় না থাকলেও পরের মেয়াদে তাকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী করেন শেখ হাসিনা। নাসিমের সময় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা জাহিদ মালেক এই সরকারে পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ এ মন্ত্রণালয় সামলাচ্ছেন।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ