এ বছরের মধ্যেই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দিন: ড. কামাল

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৭ মার্চ ২০১৯, ২১:০২

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, আমর এখন প্রকৃত অর্থে স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসেবে দাবি করতে পারি না। কারণ জনগণ ভোটাধিকার হরণ করা হয়েছে।নির্বাচনের আগের রাতে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় গিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করা প্রতারণার শামিল। এটা শুধু জনগণের সঙ্গেই প্রতারণা নয়, এতে স্বাধীনতা যুদ্ধের শহীদদের সঙ্গেও প্রতারণা করা হচ্ছে। জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে নির্বাচনের আগের রাতে চোরাই ব্যালটে বাক্স ভরে ক্ষমতা আকঁড়ে রাখা, স্বাধীনতার মূল চেতনার পরিপন্থি।
 
সরকারের কাছে দ্রুত নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, যা হওয়ার হয়েছে। আমরা অতীত নিয়ে ঘাটাঘাটি করতে চাই না। এ বছরের মধ্যেই একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দিন। প্রকৃত অর্থে নির্বাচিত তাদের ক্ষমতা বুঝিয়ে দিন।

বুধবার (২৭ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে গণফোরাম আয়োজিত স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. কামাল হোসেন বলেন, একটা ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে আমরা থাকছি। স্বাধীনতার মাস, তাই ইতিবাচক কিছু বলতে চাই। দ্রুত অবাধ নিরপেক্ষ একটা নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। করে যারা প্রকৃত অর্থে নির্বাচিত তাদের ক্ষমতা বুঝিয়ে দিন। ইতিবাচক কথা বলছি এই কারণে, আমরা সংঘাত চাই না।

তিনি বলেন, প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ। জনগণ মালিক হিসেবে যদি ক্ষমতা ভোগ করতে পারে, তখন সেটা গণতান্ত্রিক দেশ থাকে। এই যে ১৬ কোটি মানুষকে একটা প্রহসনের শিকার করছে, তারা কি মনে করছে মানুষ এটা সারা জীবন মেনে নেবে? তাদের কোনও জবাবদিহিতা কোনও সময় কোনও দিন করতে হবে না? আমি বলে দিচ্ছি, আমি বেঁচে না থাকলেও এই ধরনের জিনিসের জবাবদিহিতা বাংলার মানুষ অবশ্যই আদায় করবে।

আলোচনাসভায় আরও উপস্থিত ছিলেন গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন, নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সংবিধানপ্রণেতা কমিটির সর্বকনিষ্ঠ সদস্য অধ্যাপক আবু সাঈদ, অর্থনীতিবিদ রেজা কিবরিয়া প্রমুখ।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ