‌‌‌‌‌‌‌‘বিআরটিসি’তে দুর্নীতির বিষয়ে জিরো টলারেন্স নীতি মানতে হবে’

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ২০:৫৩

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিআরটিসি’তে দুর্নীতির বিষয়ে জিরো টলারেন্স নীতি কঠোরভাবে প্রতিপালন করা হবে ।

সংস্থাটির গাড়িবহর পরিচালনা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং রাজস্ব আহরণে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে সফটওয়্যারভিত্তিক ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা চালু করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে কল্যাণপুর, মতিঝিল ও গাবতলী ডিপোতে পরীক্ষামূলক ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা শুরু হয়েছে। এতে দুর্নীতি কমার পাশাপাশি সেবার মান বৃদ্ধি পাবে।

মন্ত্রী আজ রাজধানীর মতিঝিলের বিআরটিসি ভবনে সংস্থাটির সকল কর্মকর্তা ও ডিপো ম্যানেজারদের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং এ কথা বলেন।
মতবিনিময় সভায় বিআরটিসি’র চেয়াম্যান ফরিদ আহমদ ভূইয়াসহ সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ডিপো ম্যানেজারগণ উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, আগামী এপ্রিলের মধ্যে ভারতীয় ঋণ কর্মসূচির আওতায় বিআরটিসি’র বহরে ছয়শ বাস এবং পাঁচশ ট্রাক যুক্ত হতে যাচ্ছে। এতে একদিকে বিআরটিসি’র সক্ষমতা বাড়বে অপরদিকে যাত্রী পরিবহনের সুযোগও সম্প্রসারিত হবে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন-বিআরটিসি’কে লাভজনক করার লক্ষ্যে নতুন উদ্যমে কাজ শুরুর প্রত্যয় ব্যক্ত করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, এ লক্ষ্য অর্জনের পথে যে সকল বাধা রয়েছে তা সুষ্ঠু পরিকল্পনার মাধ্যমে দূর করা হবে ।এসময় মন্ত্রী বিআরটিসি’র জনবল বৃদ্ধির উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

বিআরটিসির কার্যালয় পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্য সর্ম্পকিত এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েছে, এমনটা মনে হয় না।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়া বিএনপির রাজনৈতিক অধিকার, সুযোগ নয়। এ বিষয়ে তাদের নিজেদেরকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। তবে আওয়ামী লীগ বিএনপি বর্তমানে যে অবস্থায় রয়েছে, সে অবস্থায় থাকলে নির্বাচন বর্জনের মতো কোন সিদ্ধান্ত নিতো না বলে জানান তিনি।

বিএনপির মহাসচিবের পদের পরিবর্তন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার বিষয়ে জানতে চাইলে কাদের বলেন, বিএনপির মহাসচিব কে হবেন, কে হবেন না, তা তারাই (বিএনপি) ঠিক করবে। এটা তাদের দলের অভ্যন্তরীণ বিষয়।

এবিএন/রাজ্জাক/জসিম/এআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ