আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৪৪

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। শাহবাগ, দোয়েল চত্বর, আইইবি, মৎস্যভবন, টিএসসি এলাকাসহ সামবেশস্থলে প্রবেশের সবগুলো গেটে অবস্থান নিয়েছেন গোয়েন্দা, র‌্যাব-পুলিশসহ নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। প্রবেশস্থলে বসানো হয়েছে আর্চওয়ে গেট। এ ছাড়া হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে সক্রিয় রয়েছেন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা।  

বিজয় সমাবেশ উপলক্ষে আজ সকাল ১১টা থেকে গণজমায়েত শুরু হয়েছে। দুপুরে উৎসবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগদানের কথা রয়েছে। এ জন্য সকালে রাজধানীর কয়েকটি সড়কে যানচলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। কয়েকটি সড়কে যানচলাচল নিয়ন্ত্রণ করে ডাইভারশন দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ।

আওয়ামী লীগের বিজয় উৎসবকে কেন্দ্র করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও এর চারপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। শাহবাগ ও টিএসসি মোড়ে প্রস্তুত রাখা হয়েছে পুলিশের সাঁজোয়াযান। ইউনিফর্মের পাশাপাশি সাদা পোশাকে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্যকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে শাহবাগ, মৎস্য ভবন, হাইকোর্টের সামনের এলাকা, দোয়েল চত্বর, টিএসসি থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রতিটি প্রবেশপথে সতর্ক অবস্থায় দেখা গেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের।

ডিএমপির রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মারুফ হোসেন সরদার বলেন, আওয়ামী লীগের বিজয় উৎসব ঘিরে ব্যাপক জনসমাগম হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সে জন্য পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নেয়া হয়েছে। এর বাইরে পুরো ঢাকা শহরেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে ডিএমপি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়ার অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান বলেন, অনুষ্ঠানস্থল, আশপাশসহ পুরো রাজধানীতেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

নিরাপত্তার স্বার্থে অনুষ্ঠানস্থলে আগতদের কোনোপ্রকার হ্যান্ডব্যাগ, ট্রলিব্যাগ, দাহ্য পদার্থ বা ধারালো কোনো বস্তু বহন না করা এবং কর্তব্যরত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এছাড়া সর্বসাধারণকে অনুষ্ঠানস্থল এবং এর আশপাশের এলাকা দিয়ে ভারী বা হালকা যানবাহনসহ যাতায়াত পরিহারের অনুরোধ করা হয়েছে।

এ বিজয় সমাবেশের মূল পর্ব শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বড় বিজয় উদযাপন করতেই এই আয়োজন। নির্বাচনের পর প্রথম আনুষ্ঠানিক এই কর্মসূচিকে জনসমুদ্রে রূপ দিতে চায় ক্ষমতাসীনরা। সেই লক্ষ্যে যথেষ্ট প্রস্তুতিও গ্রহণ করেছেন তারা। 

সমাবেশস্থলে দুপুর থেকে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দেশ বরেণ্য শিল্পীরা নাচ-গানের মাধ্যমে প্রাণবন্ত করে রাখতে শুরু করেছেন সমাবেশস্থল। দুপুর আড়াইটার দিকে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা সমাবেশস্থলে আসবেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির আগমনের সময় শিল্পী মমতাজ গান পরিবেশন করবেন। প্রধানমন্ত্রী আসন গ্রহণের পর ‘জিতবে এবার নৌকা’ গানের শিল্পীরা সমবেত কণ্ঠে গান পরিবেশন করবেন। সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিবেদন করে ‘আপনার জন্য একটি নতুন সময়ের ইঙ্গিত’ কবিতা আবৃত্তি করবেন কবি রাশেল আশেকী। এরপর শুরু হবে বক্তব্য।

মূল অনুষ্ঠান পরিচালনা করবেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন। মহাসমাবেশে আওয়ামী লীগ ছাড়াও মহাজোটের শরিক বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, আইনজীবী, সাংবাদিক, কবি-সাহিত্যিক, পেশাজীবী, সংস্কৃতি ও বিনোদন জগতের প্রতিনিধিরা উপস্থিত হচ্ছেন। 

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food