নতুনভাবে নির্বাচন করার সুযোগ নেই: সিইসি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:৩৬

একাদশ জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা বলেছেন সারা দেশে ভোট উৎসব হয়েছে সুতরাং ঐক্যফ্রন্টের দাবির প্রেক্ষিতে পুনর্র্নিবাচনের সুযোগ নেই। আজ সোমবার বিকেল চারটায় নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচনের ‘কথিত’ ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে যত দ্রুত সম্ভব নির্দলীয় সরকারের অধীনে পুনর্র্নিবাচনের দাবি করেছে ঐক্যফ্রন্ট এ বিষয়ে সিইসি বলেন, সারা দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে, দেশে ভোট উৎসব হয়েছে, পুরো কমিশন নির্বাচন নিয়ে সন্তুষ্ট, ফলে পুনরায় নির্বাচন করার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া নির্বাচন নিয়ে কারও লজ্জা পাওয়ারও কিছু নেই।

সিইসি বলেন, ভোট উৎসবে সারাদেশে প্রায় ১০ কোটি ৪১ লাখ ভোটার অংশগ্রহণ করেছেন। আর ৮০ শতাংশ ভোট কাস্ট হয়েছে।ব্যাপক উৎসাহ, উদ্দীপনা ও ব্যাপক ভোটারের অংশগ্রহণের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হয়েছে। জাতি কতোটা ভোট উৎসবে মেতেছিল, কেবল দেশি নয়, বিদেশি গণমাধ্যমেও তা আমরা দেখেছি।

তিনি বলেন, প্রিজাইডিং কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় সারাদেশের ১৬টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এই নির্বাচনে ১৪ জনের প্রাণ ঝরেছে। তবে নির্বাচন উপলক্ষে পর্যাপ্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বাহিনী মোতায়েন ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের চাওয়া অনুযায়ী সেনা মোতায়েনও করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে নুরুল হুদা বলেন, নির্বাচন কমিশনের একার প্রচেষ্টায় এই কর্মযজ্ঞ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত করা সম্ভব নয়। আপনাদের সবার অংশগ্রহণে এটা সম্ভব হয়েছে। সবাই যেভাবে সহায়তা করেছে, তাতে আমরা ধন্য। এই ভোটে যারা অংশ নিয়েছেন এবং সহায়তা করেছেন, তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

এই নির্বাচনের মাধ্যমে যে নতুন সরকার গঠিত হবে, তাদের নেতৃত্বে দেশ আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সিইসি।

এক প্রশ্নের জবাবে নুরুল হুদা বলেন, যেভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে, তাতে আমরা খুবই তৃপ্ত, সন্তুষ্ট এবং আশাবাদী। তখন বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, এটা একটা বানোয়াট অভিযোগ।  আমরা এখনো কোনো অনিয়ম, ভোট কারচুপির লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ পাই নি, যদি অভিযোগ পাই তবে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্বাচনের গেজেট কবে নাগাদ হবে এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে চূড়ান্ত ফলাফল পেতে আরও তিন থেকে চারদিন লাগবে, তারপর গেজেট হবে।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, মাহবুব তালুকদার, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদৎ হোসেন চৌধুরী, জনসংযোগ শাখার পরিচালক (যুগ্ম সচিব) এসএম আসাদুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ