হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে তেল নয় : ডিএমপি কমিশনার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৩:৫৮ | আপডেট : ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:০৬

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানিয়েছেন, মোটরসাইকেল আরোহীর মাথায় হেলমেট না থাকলে রাজধানীর কোনো পাম্প থেকে তেল কিনতে পারবেন না।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে বিশেষ ট্রাফিক মাস ঘোষণা উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে প্রত্যেক পেট্রোল পাম্পকে অনুরোধ করেছি যে, হেলমেট পরিধান করা না থাকলে কোনো মোটরসাইকেলে যাতে জ্বালানি সরবরাহ না করে।  ইতোমধ্যে ঢাকা মহানগরে চালু হয়েছে। হেলমেট না থাকলে ট্রাফিক আইন না মানলে কোনো পেট্রোল পাম্প থেকে জ্বালানি সরবরাহ করা হবে না।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, রাজধানীতে বাস থামানোর জন্য ১২১টি স্থান নির্ধারণ করেছি। এগুলোয় বোর্ড লাগানো হচ্ছে। এসব স্থানের বাইরে কেউ বাস থামাতে পারবে না। পাশাপাশি বাস স্টপেজ ছাড়া কোথাও জায়গায় বাসের দরজা খুলবে না, বন্ধ থাকবে। যাত্রীরাও বাস স্টপেজ ছাড়া অন্য কোথাও নামতে পারবেন না।

তিনি বলেন, লেগুনার কারণে রাজধানীর সড়কগুলোয় সবচেয়ে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়। সড়কে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণও এ লেগুনা। কাজেই রাজধানীতে আর লেগুনা চলবে না। লেগুনার কোনো রুট পারমিট নেই। রাজধানীতে এতদিন যারা লেগুনা চালিয়েছে, তারা অবৈধভাবে তা চালিয়েছে। তাই রাজধানীতে তাদের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

সেপ্টেম্বরজুড়ে ঢাকা মহানগরীতে বিশেষ ট্রাফিক কর্মসূচি পালনের কথা জানিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, এ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আমাদের লক্ষ্য হলো, ট্রাফিকের শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করা এবং যানজট কমানো এবং সকলে যেন আইন মেনে চলে সে বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করা। এই এক মাসে বিভিন্ন সুধী সমাজকে নিয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রাফিক সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান করব।

গত দেড় বছরের ট্রাফিক আইন ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে প্রায় ৬ লাখ ২৬ হাজার মামলা হয়েছে। গত একবছরে ঢাকা মহানগরে ৯৯ হাজার ভিডিও মামলা দেওয়া হয়েছে বলে জানান কমিশনার।

সেপ্টেম্বর থেকে জাহাঙ্গীরগেট থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত মডেল করিডোর চালু করা হবে জানিয়ে কমিশনার বলেন, সেখানে অটো সিগনালের মধ্যে দিয়ে গাড়ি চলাচল করবে এবং সব ধরনের শৃঙ্খলা ও নিয়ম প্রতিপালনের মধ্য দিয়ে এই মডেল করিডোর করা হবে। পরে আস্তে আস্তে পরবর্তী মাস থেকে এটা অন্যান্য সড়কেও চালু করা হবে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঢাকা মহানগরের বাসগুলোকে ৬টি কোম্পানির মাধ্যমে চালানোর ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের মূখ্য সচিবসহ কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং প্রয়োজনে ভৌত অবকাঠামোর পরিবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

 

 

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ