যত্নে থাকুক গয়না

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৭ জুলাই ২০১৮, ১০:১৪

ঢাকা, ১৭ জুলাই, এবিনিউজ : আপনার বানানো বা কেনা মূল্যবান গহনা ব্যবহারের পর যতœ নিয়ে বাক্সে রাখছেন ঠিকই। তবে সঠিক পন্থা জানা না থাকায় হয়ত নষ্ট হচ্ছে।  জেনে নিন গহনা যত্নে রাখার কিছু কৌশল-

* গহনার ওপর কখনো সরাসরি সুগন্ধি ব্যবহার করা যাবে না।

* কুন্দনের গহনা সবসময় স্পঞ্জ বা তুলায় পেঁচিয়ে প্লাস্টিকের বক্সে রাখতে হবে। কারণ এটা অন্য কিছুর সঙ্গে রাসায়নিক বিক্রিয়া করে এবং কালচে হয়ে যায়। এ ধরনের গহনা সব রকমের রাসায়নিক উপাদান থেকে দূরে রাখা উচিত।  

* পান্না খুবই নাজুক পাথর। পান্নার তৈরি গহনা বসে পরিধান করা উচিত। না হলে পড়ে গিয়ে ভেঙে যেতে পারে।

* বসরা অর্থাৎ আসল মুক্তার অলঙ্কার মলমল কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে রাখতে হবে। গ্রীষ্মকালে মুক্তার গহনা এড়িয়ে চলুন। ঘামের কারণে এর উজ্জ্বলতা কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। 

* ব্যবহারের পরে গহনা বক্সে তুলে রাখার আগে ভালো মতো মুছে রাখুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি বহু থাক বিশিষ্ট বক্সে আলাদাভাবে বিভিন্ন গহনা রাখা যায়। এতে গহনায় কোনো রকমের দাগ পড়ার সম্ভাবনা থাকে না।

* হীরা ছাড়া অন্য কোনো গহনা সাবান পানি দিয়ে দিয়ে পরিষ্কার করা ঠিক নয়।

* গহনার দাগ তুলতে রবার ব্যবহার করতে পারেন। 

* নির্দিষ্ট বিরতি দিয়ে গহনা পরিষ্কার করুন। এতে গহনা পরিষ্কার থাকবে এবং সবসময় নতুনের মতো উজ্জ্বল থাকবে। তবে সব ধরনের গহনা এ পদ্ধতিতে পরিষ্কার করা যাবে না। 

* স্বর্ণ অনেক কোমল ধাতু এবং এতে সহজেই দাগ পড়ে। তাই সৌন্দর্য ধরে রাখতে নির্দিষ্ট সময় পর পর কারিগরের কাছ থেকে পলিশ করানো উচিত।  

* রান্না, ব্যায়াম, সাঁতার অথবা ঘরের অন্যান্য কাজ করার সময় গহনা না পরাই ভালো। অতিরিক্ত আলো বা তাপ থেকে পাথরের গহনা যেমন- ‘কুঞ্জিত’ পরা এড়িয়ে চলুন। কেননা এতে গহনা ফ্যাকাসে বা মল্নি হয়ে যেতে পারে। 

* মেকআপ, সুগন্ধি ও লোশন ব্যবহারের পরে গহনা পরুন। কারণ এসব উপাদানে সরাসরি সংস্পর্শে এলে গহনার ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
সূত্র : ইন্টারনেট

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ