মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীসহ সারাদেশে নিহত ১৪

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৩০ মে ২০১৮, ১০:৫১ | আপডেট : ৩০ মে ২০১৮, ১১:১৯

ঢাকা, ৩০ মে, এবিনিউজ : চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে বন্দুকযুদ্ধ ও গোলাগুলিতে মঙ্গলবার রাতে রাজধানীসহ সারাদেশে ১৪ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা ৩ জন ও মাগুরায় ৩। এ ছাড়া যশোরে ২ জন, কক্সবাজারে একজন, চট্টগ্রামে একজন, কুমিল্লায় একজন, নড়াইলে একজন, চুয়াডাঙ্গায় একজন ও সিরাজগঞ্জে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতরা সবাই মাদক ব্যবসায়ী বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এ নিয়ে গত ১১ দিনে নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১৭ জন।

ঢাকা : ভাষানটেক দেওয়ানপাড়া লোহার ব্রিজ এলাকায় ভোররাতে র‌্যাবের কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা যান আতাউর রহমান (৪৬), বাপ্পি (৩৮) ও মোস্তফা হাওলাদার (৫০) নামে ৩ জন।

র‌্যাব-৪-এর অধিনায়ক চৌধুরী মঞ্জুর কবির বলেন, মাদক বিক্রেতাদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে রাতে লোহার ব্রিজ এলাকার একটি নির্মাণাধীণ বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক বিক্রেতারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। একপর্যায়ে আতাসহ ৩ মাদক বিক্রেতাকে আহত অবস্থায় পাওয়া যায়।

গুলিবিদ্ধ ৩ জনকে প্রথমে মিরপুর আধুনিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে তাদের দেখে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

র‌্যাব বলছে, আতা সাভারের ‘শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী’ এবং বাপ্পি ও মোস্তফা ভাষানটেক এলাকার ‘মাদক ব্যবসায়ী’।

ঘটনাস্থল থেকে দুটি পিস্তল ও  প্রায় ১৮ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারের কথাও জানানো হয়েছে।

মাগুরা : জেলার শহরতলির বাটিকাডাঙ্গা মাঠপাড়া এলাকা থেকে রাত ২টার দিকে ৩ ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

পুলিশ বলছে, তারা ‘মাদক ব্যবসায়ী’।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন বলেন, বাটিকাডাঙ্গা মাঠপাড়া এলাকায় গোলাগুলির শব্দ শুনে টহল পুলিশ সেখানে গিয়ে ৩ ব্যক্তির রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখে। ৩ জনকে মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিল পুলিশ। হাসপাতালে আনার আগেই ৩ জনের মৃত্যু হয় বলে জানান চিকিৎসক।

সেখান থেকে ৩২০ গ্রাম হেরোইন, এক কেজি গাঁজা, ৬ বোতল ফেনসিডিল, ৬টি রাইফেলের গুলি উদ্ধারের কথাও জানান তিনি।

জেলা পুলিশ সুপার খান মো. রেজোয়ান বলেন, নিহতদের একজন শহরের ইসলামপুর পাড়ার রায়হান ঢালী ওরফে বিট্রিশ (৩০), ভায়না এলাকার বাচ্চু চোপদার (৫৫) ও নতুন বাজার বৈরাগি পাড়ার কিশোর অধিকারী ওরফে কালা।

রায়হান ও কিশোর অধিকারীর বিরুদ্ধে ১০টি এবং বাচ্চু চোপদারের বিরুদ্ধে ৭টি মাদক মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

যশোর : বেনাপোলের বড়আচড়া সীমান্তে মাদক বিক্রেতাদের দুপক্ষের গোলাগুলিতে ২ জন নিহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন লিটন হোসেন ও চাকমা বাদশা। তাদের বাড়ি বেনাপোল দিঘিরপাড় গ্রামে ।

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান বলেন, বড়আচড়া সীমান্তে ভোর রাতে মাদক ব্যবসায়ীদের দুগ্রুপে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে নিহত হয় লিটন ও বাদশা। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের লাশ উদ্ধার করে।

ঘটনাস্থল থেকে একটি অস্ত্র, ২রাউন্ড গুলি ও ১০কেজি গাঁজা উদ্ধারের কথা জানান তিনি।

তিনি আরও জানা, লিটন ও বাদশা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী এবং তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।

কক্সবাজার : শহরে সমুদ্র সৈকতে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মো. মুজিবুর রহমান (৪২) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

মুজিবুরের বিরুদ্ধে তার জেলার বিভিন্ন থানায় ১০টি মাদক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

রাত সোয়া ১২টার দিকে সৈকত সংলগ্ন কবিতা চত্বরে এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।

র‌্যাব-৭ এর কক্সবাজার কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিন বলেন, র‌্যাব সদস্যরা মাদক ব্যবসায়ী সন্দেহে কয়েকজনকে চ্যালেঞ্জ করলে তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। তখন আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। পরে ঘটনাস্থল থেকে নেত্রকোণার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ও ১০টি মামলার আসামি মজিবুরের গুলিবিদ্ধ দেহ পাওয়া যায়।

সেখান থেকে ৬ হাজার ইয়াবা, একটি ওয়ান শ্যুটার গান, ৩ রাউন্ড গুলি ও দুটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয় বলেও জানান তিনি।

চট্টগ্রাম : রাত ২টার দিকে শহরের পলোগ্রাউন্ড এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ইসহাক (৩৫) নামে সন্দেহভাজন এক মাদক বিক্রেতা নিহত হন।

র‌্যাব-৭-এর চাঁদগাও কোম্পানির কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আশেকুর রহমান বলেন, ‘মাদকের চালান লেনদেনের খবরে তারা র‌্যাব সদস্যরা এলাকায় অভিযানে গেলে তাদের ওপর গুলি চালানো হয়। আত্মরক্ষায় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চায়। পরে ঘটনাস্থলে ইসহাকের গুলিবিদ্ধ মরদেহ, চার হাজার ইয়াবা, একটি ওয়ান শুটারগান ও ১০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

চুয়াডাঙ্গা : পৌর এলাকার সাতগাড়ি গ্রামের মাঠে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তানজিল আহমেদ (৩০) নিহত হন। 

পুলিশ জানায় নিহত তানজিল তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী।

তানজিল চুয়াডাঙ্গার শহরতলী দৌলাৎদিয়াড় গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় ১২টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, একদল মাদক ব্যবসায়ী পৌর এলাকার সাতগাড়ি গ্রাম এলাকা দিয়ে মাদকের চালান নিয়ে যাচ্ছে বলে খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল সেখানে পৌছালে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। প্রায় ১০ মিনিট গোলাগুলির পর মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মাদক ব্যবসায়ী তানজিলের মরদেহ উদ্ধার করে।

লাশের পাশ থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, চার রাউন্ড গুলি ও এক বস্তা ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়।

তিনি  বলেন, এ ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা সদর থানার এসআই রবিউল ইসলাম ও কনস্টেবল আব্দুস সবুরও আহত হয়েছেন।

কুমিল্লা : বুড়িচং উপজেলার লড়িবাগ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রোছমত  আলী (৪০) নামের একজন নিহত হয়েছেন।

বুড়িচংয়ের ছয়গ্রাম এলাকার মৃত আলী আহাম্মদের ছেলে রোছমতের বিরুদ্ধে ৭টি মাদক মামলা রয়েছে।

বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোজ কুমার দে বলেন, ওই অভিযানের সময় মাদক চক্রের হামলায় ৩ পুলিশ আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে ১ রাউন্ড কার্তুজসহ একটি পাইপগান ও ৪০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে।

নড়াইল : পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সজিব (২৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন।

সজিব সদর উপজেলার দত্তপাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আলতাব হোসেনের ছেলে। তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে বলে নড়াইল সদর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন।

নড়াইলের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. মেহেদী হাসান জানান, মালিবাগ মোড়ে রাতে মাদক বিক্রেতাদের অবস্থানের খবর পেয়ে পুলিশের একটি বিশেষ দল অভিযানে যাওয়ার পর এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। এতে ২ এসআইসহ ৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হন।

ঘটনাস্থল থেকে ২১৩টি ইয়াবা ট্যাবলেট, একটি রিভলবার, ২ রাউন্ড গুলি ও দুটি রামদা উদ্ধারের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

সিরাজগঞ্জ : কামারখন্দে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আশান হাবিব (৪৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন। কামারখন্দ উপজেলার কামারখন্দ হাটপাড়া গ্রামের ইজার উদ্দিনের ছেলে। হাবিবের বিরুদ্ধে ৭টি মামলা বিচারাধীন।

র‌্যাব এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ভোরে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের ঝাঐল ওভার ব্রিজের পাশে একটি ইউক্যালিপটাস বাগানে ভেতরে এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’র ঘটনা ঘটে। 

ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, এক রাউন্ড গুলি, এক হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট ও ২০ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়।

অভিযানে র‌্যাব সদস্য ল্যান্স নায়েক ছাবলুর রহমান, নায়েক তোফায়েল আহমেদ ও কনস্টেবল আরিফ হোসেন আঘাতপ্রাপ্ত হন এবং তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ