লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পেশ, উত্তাল সংসদ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৭:৫৭ | আপডেট : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮:৪২

কংগ্রেস ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ভারতীয় সংসদের লোকসভায় সোমবার বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধন বিল উত্থাপনের পর কংগ্রেস সংসদ সদস্যদের তুমুল বিরোধিতার জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিলটি সংসদে পেশের সঙ্গে সঙ্গেই তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। বিলের একাধিক অংশ নিয়ে আপত্তি তোলেন লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী। বিলটি সংখ্যালঘুদের স্বার্থ বিরোধী বলে আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের সংখ্যালঘু মানুষদের লক্ষ্য করেই এই বিলটি তৈরি করা হয়েছে।’

অধীর অভিযোগ করে বলেন, ‘বিলটি সংবিধানের ১৪ নং অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করছে।’ ওই অনুচ্ছেদে দেশের প্রত্যেক নাগরিকের আইনের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে।বিলটিকে ‘অসাংবিধানিক’ এবং ‘বিভেদ সৃষ্টিকারী’ বলে আখ্যা দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ সৌগত রায়।

কংগ্রেস সংসদ সদস্যদের এসব বক্তব্যের জবাবে অমিত শাহ বলেন, ‘কংগ্রেসই ধর্মের ভিত্তিতে দেশ বিভাজন করেছে। এটা ইতিহাস বলছে। আর এখন এটা কংগ্রেসকে শুনতে হবে।’

অমিত শাহ আরও বলেন, ‘আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশের সংবিধানে রাষ্ট্রের ধর্মের উল্লেখ করা হয়েছে। ভারত ভাগের পর, ১৯৫০ সালে নেহরু-লিয়াকত সমঝোতার মাধ্যমে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তার আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, দুর্ভাগ্যবশত তাদের উপর অত্যাচার হয়েছে।’ তার দাবি, তিন দেশেই হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি, ও খ্রিস্টানদের উপর অত্যাচার হয়েছে। ওই তিন দেশের সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্যই এই বিল, জানান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, সোমবার লোকসভায় বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধন বিল পাস হয়েছে। এর আগে ৪ ডিসেম্বর প্রস্তাবিত বিলটি ভারতের মন্ত্রীসভায় অনুমোদন পায় । ১১ ডিসেম্বর এই বিল রাজ্যসভায় উত্থাপিত হতে পারে। বিলটি পাস হলে আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু, শিখ, জৈন, পার্সি, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী মানুষ, যারা ভারতে শরণার্থী হিসেবে রয়েছেন তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। তথ্যসূত্র : ইন্ডিয়া টুডে ও আনন্দবাজার পত্রিকা।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ