কাশ্মীর ইস্যুতে জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে ফোনালাপে ইমরান খান

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০১:০৫

কাশ্মীর নিয়ে ভারতের সঙ্গে চলমান উত্তেজনায় কূটনৈতিক সহায়তা পেতে এবার জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেলের সঙ্গে কথা বলেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) অ্যাঙ্গেলা মারকেলের সঙ্গে ফোনালাপে ইমরান খান কাশ্মীরের সাম্প্রতিক বিষয়ে তাকে অবহিত করেছেন বলে ডন ও জিয়ো নিউজের খবরে জানানো হয়েছে।

কাশ্মীর নিয়ে মোদি সরকারের একতরফা সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে ফোনালাপে ইমরান খান অ্যাঙ্গেলা মারকেলকে বলেন, কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন বাতিলের মাধ্যমে মূলত ওই অঞ্চলের পরিচিতি মুছে দেয়ার পরিকল্পনা করেছে ভারত। যেটি জাতিসংঘের গৃহীত সিদ্ধান্তের স্পষ্ট লঙ্ঘন।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ উপত্যকাটিতে গণহত্যার আশংকার কথা জানিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, সীমান্তে নতুন কোনো ইস্যু সৃষ্টির তৈরির মাধ্যমে ভারত সরকার কাশ্মীর থেকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি ফেরানোর চেষ্টা করছে।

ইমরান খান বলেন, বিশ্ব শক্তিকে কাশ্মীরি জনগণের পক্ষে এখনই কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে হবে। কারণ ইতিমধ্যে সেখানে গণহত্যার ক্ষেত্র তৈরি করেছে মোদি সরকার।

ফোনালাপে অ্যাঙ্গেলা মারকেল ইমরান খানকে জানান, কাশ্মীর নিয়ে সৃষ্ট সংকট জার্মানি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।

৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মধ্য দিয়ে কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার ও বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয় বিজেপি নেতৃত্বাধীন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

লাদাখ ও কাশ্মীরকে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করতে পার্লামেন্টে বিল আনা হয়। বিরোধীরা বিষয়টি নিয়ে সরব হলেও তাদের ঐক্যবদ্ধ বিরোধিতার অভাবে লোকসভা ও রাজ্যসভা দুই কক্ষে বিলটি পাস হয়।

এ নিয়ে প্রথম থেকেই তীব্র আপত্তি জানিয়ে আসছে পাকিস্তান। এটা ভারতের একতরফা সিদ্ধান্ত, এই অভিযোগ তুলে নিরাপত্তা পরিষদের দ্বারস্থ হয় তারা। কাশ্মীর নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কাশ্মীরি জনগণের অধিকার রক্ষায় ব্যাপক কূটনৈতিক তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যে জাতিসংঘের স্থায়ী পাঁচ সদস্যসহ বিশ্বের প্রভাবশালী দেশগুলোর সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ