শ্রীলঙ্কায় গির্জা ও হোটেলে বিস্ফোরণ : নিহত ১৩৮

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২১ এপ্রিল ২০১৯, ১২:০৫ | আপডেট : ২১ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৩৬

শ্রীলঙ্কায় খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের ইস্টার সানডের প্রার্থনার সময় রাজধানীসহ বিভিন্ন স্থানে তিনটি গির্জা ও তিনটি অভিজাত হোটেলে সিরিজ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অন্তত ১৩৮ জন মানুষ নিহত এবং ৪ শতাধিক আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়বে।

আজ রবিবার সকালে প্রার্থনার সময় এসব বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

তিনটি হোটেলে ও তিনটি গির্জায় বিস্ফোরণগুলো ঘটেছে বলে পুলিশের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন। 

সকাল সাড়ে ৮টা থেকে পৌনে ৯টার মধ্যে কোচচিকাদে এলাকার সেইন্ট অ্যান্থনির চার্চ, কাটুয়াপিতিয়ার সেইন্ট সেবাস্টিয়ানের চার্চ এবং বাত্তিকালোয়ার একটি গির্জায় ইস্টার সানডের প্রার্থনা চলাকালে বোমা হামলা চালানো হয়।

কাছাকাছি সময়ে রাজধানী কলম্বোর শাংরি লা, সিনামন গ্র্যান্ড ও কিংসবুরি হোটেলেও বিস্ফোরণ ঘটে। 

হতাহতদের মধ্যে বিদেশি পর্যটক থাকতে পারে বলে শ্রীলঙ্কার গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে। 

স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, কেবল সেইন্ট সেবাস্টিয়ানের গির্জাতেই অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাত্তিকালোয়ায় অন্তত ২৫ জনের লাশ উদ্ধারের খবর দিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের কাছে সিনামন গ্র্যান্ড হোটেলের রেস্তোরাঁয় বিস্ফোরণে অন্তত একজন নিহত হয়েছেন বলে হোটেলটি এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

এখন পর্যন্ত কেউ এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। 

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রম সিংহে তার নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত ছবি থেকে দেখা যাচ্ছে, কাতুয়াপিটিয়াতে অবস্থিত সেন্ট সেবাস্তিয়ান নামক গির্জার ছাদ ধসে পড়েছে এবং গির্জার মূল স্থানে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ লেগে আছে।

শ্রীলঙ্কা মূলত বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদেরই দেশ। দেশটিতে খ্রিস্টান ধর্মালম্বীদের সংখ্যা মাত্র ৬ শতাংশ। দেশটির দুই নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী তামিল ও সিংহলিজ উভয়ের মধ্যেই এই ধর্মাবলম্বীদের দেখতে পাওয়া যায়।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food