ব্রাজিলে আকস্মিক বন্যায় ১০ জনের মৃত্যু

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:২৩

প্রবল বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে, ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে আকস্মিক বন্যায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন অঙ্গরাজ্যের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বেশ কয়েক এলাকায় জরুরি সতর্কতা জারি করেছে দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা। বন্যায় ভূমিধসের আশঙ্কাও প্রকাশ করা হয়েছে। এদিকে, ইরানে বন্যার্তদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। ত্রাণ সহায়তা পাঠাতে শুরু করেছে বিশ্বের বহু দেশ। তবে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে পাঠানো যাচ্ছে না কোনো অর্থ সহায়তা।

যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন অঙ্গরাজ্যের ইউজেন, লেন, হ্যারিসবার্গসহ বেশ কয়েকটি কাউন্টিতে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ অঞ্চল। পাঁচ শতাধিক বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন বাসিন্দারা। এ অবস্থায় ভূমিধসের আশঙ্কা জানিয়েছে মার্কিন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা। এছাড়া বেশ কয়েকটি এলাকায় জরুরী সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

একই দিন, ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে আকস্মিক বন্যায় নিখোঁজ রয়েছেন অনেকেই। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানায়, সোমবার সন্ধ্যা থেকে মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) দুপুর পর্যন্ত সেখানে ২১ মিলি মিটারের বেশি বৃষ্টি হয়েছে। দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহরটির সব রাস্তা বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। এ অবস্থায় ওই অঞ্চলে জরুরী অবস্থা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। এছাড়া শহরের সাতশ' পঁচাশিটি এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দাদের।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, আমার বয়স ২৫ বছর। সারা জীবনে এমন বৃষ্টি দেখিনি। খুবই অবাক লাগছে। শুনলাম নদী গতিপথ পরিবর্তন করায় এ দুর্যোগে পড়েছি আমরা। তাই বলে এতো বৃষ্টি।

এক নারী বলেন, বাড়ির ভেতর সবখানে পানি। মেয়র বলেছেন সব ছেড়ে পালাতে। কিন্তু পরে তো এখানেই ফিরে আসতে হবে। বাড়িঘর ছেড়ে যাবো আর কই?

এদিকে, ইরানের তিন সপ্তাহ ধরে চলমান বন্যায় লোরেস্তান ও গোলেস্তান প্রদেশের ৭৭টি স্কুল ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে গেছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। ভয়াবহ এ বন্যায় দুর্গতদের সহায়তায় ত্রাণ সহায়তা পাঠাতে শুরু করেছে ফ্রান্স, জার্মানি, তুরস্ক, কুয়েত, নরওয়েসহ বিভিন্ন দেশ। ত্রাণ বিতরণের কাজ করছে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবকরা। তবে দেশটির ওপর কঠোর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থাকায় অর্থ সহায়তা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। বন্যার্তদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতো আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোও।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food