কাশ্মিরে সেনাবাহিনীর হুঁশিয়ারি, অস্ত্র হাতে নিলে গুলি করে হত্যা করা হবে

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:৫০

জম্মু-কাশ্মিরে কেউ অস্ত্র হাতে তুলে নিলেই তাকে গুলি করে হত্যা করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সেনাবাহিনীর লেফ্টেন্যান্ট জেনারেল কে এস ধিলোঁ। আজ (মঙ্গলবার) সেনাবাহিনী, আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফ ও পুলিশের পক্ষ থেকে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে সেনাবাহিনীর লেফ্টেন্যান্ট জেনারেল কে এস ধিলোঁ ওই হুঁশিয়ারি দেন। কোনও অনুপ্রবেশকারী এ দেশে ঢুকলে সে বেঁচে ফিরতে পারবে না বলেও তিনি হুঁশিয়ারি দেন।

তিনি বলেন, কাশ্মির উপত্যকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ কোনোভাবেই বরদাশত করা হবে না। পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলার একশ’ ঘণ্টার মধ্যেই উপত্যকা থেকে জৈশ সন্ত্রাসীদের নির্মূল করা হয়েছে। হামলার নেপথ্যে থাকা জৈশ সন্ত্রাসীদের পাক সেনাবাহিনী ও আইএসআই নিয়ন্ত্রণ করে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

কাশ্মিরের সাধারণ মানুষদের তাঁরা নিরাপত্তা দিতে বদ্ধপরিকর। সেজন্য কোথাও এনকাউন্টার হলে তার কাছাকাছি যেন কেউ না যান সেই পরামর্শ দিয়েছেন সেনা কর্মকর্তা লেফ্টেন্যান্ট জেনারেল কে এস ধিলোঁ।

গত (বৃহস্পতিবার) কাশ্মিরে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় কমপক্ষে ৪৪ জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হন। জৈশ-ই-মুহাম্মদ সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ওই হামলার দায় স্বীকার করেছে।

ওই ঘটনার পরে গতকাল (সোমবার) নিরাপত্তা বাহিনীর যৌথ অভিযানে জৈশ কমান্ডার কামরানসহ তিন সন্ত্রাসী নিহত হয়। ভয়াবহ ওই সংঘর্ষের সময় সেনাবাহিনীর এক কর্মকর্তাসহ নিরাপত্তা বাহিনীর পাঁচ জওয়ান নিহত হন।

এ প্রসঙ্গে, পশ্চিমবঙ্গের মানবাধিকার সংস্থা ‘বন্দি মুক্তি কমিটি’র সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য ভানু সরকার আজ (মঙ্গলবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘আমরা মানবাধিকার সংস্থার পক্ষ থেকে বরাবরই বলেছি, কাশ্মির সমস্যা রাজনৈতিক সমস্যা। রাজনৈতিক সমস্যা কোনোদিনই বন্দুক দিয়ে, সামরিক বাহিনী দিয়ে মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। পৃথিবীর কোনো জায়গাতে তা করা যায়নি, কাশ্মিরেও তা করা যাবে না। সেজন্য আলোচনাই একমাত্র কাশ্মির সমস্যা সমাধানের পথ।’

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food