করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করে পরিপত্র জারি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৯ জুন ২০২০, ১৬:১১ | আপডেট : ২৯ জুন ২০২০, ১৬:৪০

সরকারিভাবে করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরীক্ষার আরটি-পিসিআর টেস্টের আর বিনামূল্যে থাকছে না। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরীক্ষার ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। 

আজ সোমবার (২৯ জুন) সরকারি হাসপাতাল ও চিকিৎসা কেন্দ্রে তিন ক্ষেত্রে তিন ধরনের ‘কোভিড-১৯ পরীক্ষা-নিরীক্ষার ইউজার ফি হার নির্ধারণ’ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ থেকে পরিপত্র জারি করা হয়।

সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা-১ অধিশাখার উপসচিব ড. বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত পরিপত্রে বলা হয়, বুথ থেকে সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার ফি ২০০ টাকা, বাসা থেকে সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষার ফি ৫০০ ও হাসপাতালে ভর্তি রোগীর নমুনা পরীক্ষা ফি ২০০ টাকা।

পরিপত্রে বলা হয়, করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আরটি-পিসিআর টেস্টের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়। বর্তমানে এ পরীক্ষা সরকার বিনামূল্যে প্রদান করছে, ফলে কোনো উপসর্গ ছাড়াই অধিকাংশ মানুষ এ পরীক্ষা করানোর সুযোগ গ্রহণ করছেন।

এমতাবস্থায় কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার জন্য অপ্রয়োজনীয় কোভিড টেস্ট পরিহার করতে অর্থ বিভাগের গত ১৫ জুনের সম্মতি অনুযায়ী আরটি-পিসিআর টেস্টের এই ফি/হার নির্ধারণ করা হয়েছে বলে পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

পরিপত্রে আরও বলা হয়, এ বাবদ আদায় করা রাজস্ব সরকারি কোষাগারে জমা করতে হবে।

পরিপত্রে ফি নির্ধারণের পাশাপাশি কিছু শর্তারোপ করা হয়েছে। এসব ফি সকল সরকারি হাসপাতালের ক্ষেত্রে নির্ধারণ করা হয়েছে জানিয়ে শর্তে বলা হয়, পরীক্ষার ফি বাবত আদায়কৃত রাজস্ব সরকারি কোষাগাড়ে জমা হবে। তবে ‘চিকিৎসা সুবিধা বিধিমালা’ ১৯৭৪  এর আওতায় সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের চিকিৎসা সংক্রান্ত সকল সুযোগ-সুবিধা বহাল থাকবে। একই সঙ্গে বীর মুক্তিযোদ্ধা, দুস্থ ও গরীব রোগীদের চিকিৎসা ও রোগ নির্ণয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা সংক্রান্ত সরকারি আদেশ বহাল থাকবে।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে জনস্বার্থে জারিকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

দেশের সব মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিশেষায়িত হাসপাতালের পরিচালক, জেলা/জেনারেল জেলা হাসপাতালের পরিচালক/তত্ত্বাবধায়ক, সব সিভিল সার্জন এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তাকে পরিপত্রের অনুলিপি দেয়া হয়েছে।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

এই বিভাগের আরো সংবাদ