লিভার ট্রান্সপ্লান্টে বিএসএমএমইউর অভাবনীয় সাফল্য

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯, ০০:২৯

চিকিৎসা ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসকরা। প্রথমবারের মতো সফলভাবে এক রোগীর লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করেছেন তারা। চিকিৎসকরা বলছেন, এখন দেশেই লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্টের মতো জটিল রোগের সফল চিকিৎসা সম্ভব।

বিএসএমএমইউর চিকিৎসকদের এই অর্জন বছরে অন্তত ৫০০ রোগীকে বিপুল পরিমাণ খরচের হাত থেকে বাঁচাবে বলে আশা করা হচ্ছে। কোটি টাকা খরচে এই চিকিৎসা করতে প্রতি বছর অন্তত ৫০০ জন রোগী ভারতে যায়। কিন্তু এখন বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা খরচ করলেই এই চিকিৎসা মিলবে।

এর আগে দেশে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে লিভার ট্রান্সপ্লান্টের চারটি অস্ত্রোপচার হলেও সেগুলোর সবগুলো পুরোপুরি সফল হয়নি।

বঙ্গবন্ধু মেডিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জারি বিভাগের যৌথ প্রচেষ্টায় সিরাতুল ইসলাম শুভ নামের ২০ বছরের একটি যুবক স্বাভাবিক জীবনে ফেরার স্বপ্ন দেখছেন।

বিভাগের প্রধান জুলফিকার রহমান খানের নেতৃত্বে ৫০ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ দল এই অস্ত্রোপচার করেছে। সহযোগিতা করেছেন রেডিওলজি ও ইমেজিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এম এইচ মোস্তফা কামাল ও রেসিডেন্ট দীপক ভার্মা। এছাড়া জটিল এ অস্ত্রোপচারে সার্বিক সহায়তা করেন ভারতের প্রতিথযশা লিভার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন পি বালাচন্দ্র মেনন।

শনিবার (০৬ জুলাই) সংবাদ সম্মেলন করে গত ২৪ জুনের অস্ত্রোপচার এবং পরের ১২ দিনের একটি ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয়। যেখানে রোগী এবং রোগীর মাকে সম্পূর্ণ সুস্থ দেখা যায়। তবে নিবিঢ় পরিচর্যার কারণে এখনও রোগীর কাছে কাউকে যেতে দেওয়া হচ্ছে না।

শুভ ২০১৭ সাল থেকে লিভার সিরোসিসে ভুগছিলেন। ভারতের চিকিৎসার জন্য গেলে তাকে সেখানকার বিশেষজ্ঞরা লিভার ট্রান্সপ্লান্টের কথা বলেন। প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে এই চিকিৎসার সাধ্য নেই বলে সন্তানকে দেশে নিয়ে আসেন বাবা। অবস্থা দিন দিন অবনতি হতে থাকলে ভর্তি করেন বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে। এখানে চিকিৎসকদের টানা ছয় মাসের পরিচর্যা তাকে লিভার ট্রান্সপ্লান্টের উপযোগী করে তোলে।

শুভর মা রোকসানা বেগম নিজের লিভারে একটি অংশ ছেলেকে দেন। গত ২৪ জুন ভোর ছয়টা থেকে শুরু হয় গ্রহীতার লিভার ট্রন্সপ্লান্ট এর মতো জটিল অস্ত্রোপচার। টানা ১৮ ঘণ্টা প্রচেষ্টায় সফল হন ৫০ সদস্যের এই চিকিৎসক দল। বর্তমানে রোগী এবং দাতা দুজনেই সুস্থ আছেন।

হেপাটোবিলিয়ারি, প্যানক্রিয়েটিক ও লিভার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান খান বলেন, শুভর মায়ের লিভার থেকে প্রায় ৬০ শতাংশ নিয়ে রোগীর শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। রোগীর লিভারটিও সেখান থেকে পুরোপুরি অপসারণ করা হয়েছে।

এই অপারশেনটি করতে খরচ হয়েছে ২৫ লাখ টাকা। ত বে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল পুরো ব্যয় বহন করায় একটি টাকাও দিতে হয়নি ভুক্তভোগী পরিবারটিকে। ভারতে এই অপারেশনে খরচ হয় এক কোটি, সিঙ্গাপুরে প্রায় দুই কোটি।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ