মানবতা অর্জনই হোক আমাদের ক্যারিয়ার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ জুন ২০১৮, ১৩:১০

মোয়াজ্জেমা আক্তার লিমা, ০৪ জুন, এবিনিউজ: ক্যারিয়ার শব্দটির সাথে আমরা অনেক ছোটবেলা থেকে পরিচিত। আমরা জীবনের বেশী সময় ধরে ভাবতে থাকি ক্যারিয়ার নিয়ে। জীবনটাকে কীভাবে সাজাবো, কী হবো, কী পড়াশোনা করবো, জেনারেল শিক্ষা নাকি মাদ্রাসা, ডাক্তার হবো নাকি ইঞ্জিনিয়ার হবো, নাকি ব্যবসায়ী হবো ইত্যাদি সমূহ নিয়ে আমরা চিন্তিত থাকি।

যেমনই ভাবে আমরা চিন্তিত থাকি তেননি ভাবে বেশি চিন্তিত থাকে আমাদের অভিভাবকগণ। একটি সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পূর্বেই অনেকেই তার সন্তানের জন্য ক্যারিয়ার নির্বাচন করে থাকেন। সাধারণত আমরা জীবিকা নির্বাহের পথ ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ব্যরিষ্টার প্রভৃুিত সমূহকে ক্যারিয়ার ভেবে থাকি। ছোটবেলা থেকে যদি কারও ইচ্ছা থাকে আমি ডাক্তার হবো সেই লক্ষ্যে কাজ করে ডাক্তার হওয়াকে কী ক্যারিয়ার বলবো?

আমি ব্যক্তিগতভাবে বলব, শুধু ডাক্তার হওয়া কিংবা ইঞ্জিনিয়ার হওয়াকে ক্যারিয়ার বলে গণ্য হবে না। ক্যারিয়ার নিয়ে ভাবার আগে জানতে হবে আমাকে নিয়ে অর্থাৎ মানুষকে নিয়ে। এই মানুষই হলো আশরাফুল মাখলুকাত অর্থাৎ সৃষ্টির সেরা জীব। জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানই হলো সৃষ্টির সেরা এই মানুষ। আর এই মানুষকে কয়েকটি প্রশ্ন সম্পর্কে অবগত হতে হবে।
১। আমি কে?
২। আমি কোথা থেকে এসেছি?
৩। আমার গন্তব্য স্থল কোথায়?
৪। আমার করণীয় কী? এবং
৫। আমি কী করছি?
এই গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি প্রশ্নের মাধ্যমে আমরা ক্যারিয়ার নির্বাচন করবো। প্রথম প্রশ্ন হলো আমি কে? আমি অর্থাৎ মানুষ সৃষ্টি সেরা জীব। দ্বিতীয় প্রশ্ন হলো আমি কোথা থেকে এসেছি? খুব সহজে অনুধাবন করতে পারি যে, আমরা আমাদের মহান ও প্রজ্ঞাময় সৃষ্টিকর্তার কাছ থেকে এসেছি। তৃতীয় আমার গন্তব্যস্থল কোথায়? অবশ্যই আমরা জানি, মানুষ মরনশীল। এই পৃথিবীতে মানুষ কিছু সময়ের বিচরণ করতে পারে। তারপর একটা সময় অতিবাহিত হওয়ার পর আমাদের পৃথিবী থেকে চলে যেতে হয়। পৃথিবী থেকে চলে যাওয়ার পর আমাদের কর্মফল অনুযায়ী জান্নাতে বা জাহান্নামে কিংবা স্বর্গ অথবা নরকে অবস্থান হবে। চতুর্থ প্রশ্ন হলো, আমার করণীয় কী? সৃষ্টিকর্তা মানুষকে প্রতিনিধি হিসেবে পাঠিয়েছেন। পৃথিবীর সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে ন্যায়ের দন্ড ধারণ করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই হলো আমার অর্থাৎ মানুষের করণীয়। পঞ্চম প্রশ্ন হলো, আমি কী করছি? এই প্রশ্নের উত্তরটি আমরা নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করলে উত্তরটি পেয়ে যাবো।

তাহলে আমরা ক্যারিয়ার হিসেবে পেলাম দুটি জিনিস। জান্নাত ও জাহান্নাম কিংবা স্বর্গ অথবা নরক। তাহলে আমাদের সকলের গন্তব্যস্থান অর্থাৎ ক্যারিয়ার হওয়া উচিত জান্নাত অথবা স্বর্গ। এই ক্যারিয়ার গঠনে মানবধর্ম পালন করতে হবে। মানুষের ধর্ম হলো মানবতা। মানবতাই হলো ক্যারিয়ার গঠনের অন্যতম হাতিয়ার বা উপাদান। এই ক্যারিয়ার গঠনে বা গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে অবশ্যই মনোবল দৃঢ় করতে হবে। লক্ষ্য অর্জনে অটুট থাকতে হবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়তে হবে। আমাদের মনোবল এমন হতে হবে যে, কোনোভাবেই কেউ যেন অন্যায় ও অসত্যের পথে নিয়ে না যায়। গন্তব্য স্থলে পৌঁছাতে আমাদের যা করণীয় করতে হবে:
১। ঐক্য গড়তে হবে।
২। সুশৃঙ্খল হতে হবে।
৩। আনুগত্যশীল হতে হবে।
৪। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে হবে।
৫। সর্বাত্মক প্রচেষ্ঠা থাকতে হবে।
সুতরাং মানবতার বাণী সর্বত্রই ছড়িয়ে দিয়ে পৃথিবী থেকে সমস্ত অন্যায়কে দূর করে সুন্দর, সুশৃঙ্খল শান্তিপূর্ণ পৃথিবী অর্জনই  হোক  আমাদের  সকলের  ক্যারিয়ার।

লেখক: প্রভাষক, উইন্স কলেজ, রংপুর।

এই বিভাগের আরো সংবাদ