দীপিকার প্রসংশায় মাধুরী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৫ জুন ২০২০, ২১:১৮

ভারতীয় সিনেমায় সেরার সেরা সুন্দরী অভিনেত্রীদের মধ্যে নাম রয়েছে মাধুরী দীক্ষিতের। পাশাপাশি, নিজের নাচের জাদুতেও তিনি দর্শককে মাতিয়ে রেখেছেন আজও। তার ক্যারিয়ারের বিভিন্ন চরিত্র আজও দর্শক ও ভক্তদের মনে চিরউজ্জ্বল। মাধুরীর নাচ ও স্টাইলের চমকে তাকে বলিউডপ্রেমীরা 'ধক ধক গার্ল' নামে ডাকেন। সম্প্রতি মাধুরী একটি লাইভ শো-তে ভক্তের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছিলেন। সেখানে এক ভক্ত তাকে প্রশ্ন করে, এই প্রজন্মের কোন অভিনেত্রীকে তিনি ফুল মার্কস দিতে চান। সেখানেই মাধুরীর মুখে শোনা যায় দীপিকা পাড়ুকোনের নাম।

মাধুরীর মতে, দীপিকা যে চরিত্রে অভিনয় করেন সেই চরিত্রের একেবারে ভিতরে ঢুকে যান। এর পাশাপাশি সম্প্রতি যে চরিত্রগুলিতে দীপিকা অভিনয় করেছেন, সেগুলি সবই 'লার্জার দ্যান লাইফ' ছবি।

সে কারণে সেই সব চরিত্রগুলি আরও কঠিন চ্যালেঞ্জ এক অভিনেত্রীর জন্য। মাধুরী বলেছেন, এই ধরনের চরিত্রে দারুণ অভিনয় করেন দীপিকা। অন্যদিকে, দীপিকাও বরাবর মাধুরীর ফ্যান বলেই জানিয়েছেন। এক্ষেত্রে প্রিয় অভিনেত্রীর মুখে নিজের প্রশংসা শুনে আপ্লুত দীপিকাও।

শাহরুখ খানের বিপরীতে 'ওম শান্তি ওম' দিয়ে বলিউডের জার্নি শুরু। এর পর একে একে ককটেল, পিকু, রাম লীলা, ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি, পদ্মাবত থেকে বাজিরাও মস্তানি। নানা ছবিতে নানা চরিত্রে বাজিমাত করেছেন দীপিকা। দর্শকের মনে আলাদা জায়গা তৈরি করেছেন তিনি।

করোনাভাইরাসের জেরে লকডাউন গোটা দেশ। কোভিড ১৯-এর সংক্রমণ আটকাতে আপাতত বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই লকডাউনের পথে হেঁটেছে। ভারতও ২ মাসের বেশি হয়ে গিয়েছে লকডাউন হয়ে হয়েছে। সে কারণে ফিল্মের কাজও পুরোপুরি বন্ধ। একেবারেই বাড়িবন্দি হয়ে রয়েছেন অভিনেতা-অভিনেত্রীরা। কিন্তু তার মধ্যেই এবার ওয়ার্ক ফ্রম হোম শুরু করলেন দীপিকা পাড়ুকোন। অনলাইনে স্ক্রিপ্টের ন্যারেশন শুনছেন নায়িকা।

ফিল্মমেকারদের সঙ্গে অনলাইনেই মিটিং সারছেন অভিনেত্রী। একেবারে প্রফেশনাল অভিনেত্রীর মতোই কাজ করছেন দীপিকা। ডিজিটাল দুনিয়ায় ভার্চুয়াল ভাবেই কাজ করছেন তিনি। আগামীতে যে সিনেমার কাজ তিনি ধরে ফেলেছিলেন সেগুলির নানা ধরনের ন্যারেশন শুনছেন তিনি। তার সঙ্গে নতুন পরিচালকদের কাছ থেকে স্ক্রিপ্টের ন্যারেশন শুনছেন।
যদি লকডাউন না থাকত, তবে এই সময় শ্রীলঙ্কায় থাকার কথা ছিল দীপিকার। শকুন বাত্রার পরের ছবির শুটিং করতেন তিনি। তারই সঙ্গে অভিনয় করার কথা ছিল সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী ও অনন্যা পান্ডের।

এবিএন/মমিন/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ