বন্ড সুবিধা পাবেন স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০১৯, ১০:৪০

রফতানির উদ্দেশ্য কাঁচামাল হিসেবে স্বর্ণ আমদানি করলে বন্ড সুবিধা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, ‘আমরা রফতানি পণ্য বহুমূখীকরণ করতে চাই। এ জন্য তৈরি পোশাক, চামড়া ও প্লাস্টিকের মতো স্বর্ণ শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতেও বন্ড সুবিধা দেব। তবে যারা রফতানি করার শর্তে স্বর্ণ আমদানি করবে কেবল তারাই এ সুবিধা পাবেন।’

রবিবার রাজধানীতে পাঁচতারকা হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে তিন দিনব্যাপী ‘স্বর্ণ কর মেলা’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব এ কথা বলেন।

এনবিআর ও বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) যৌথভাবে মেলার আয়োজন করেছে।

এনবিআর সদস্য (আয়কর নীতি) কানন কুমার রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বাজুস সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার ও সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা, করাঞ্চল-১-এর কমিশনার নাহার ফেরদৌস প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্য মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘যারা বন্ড সুবিধা পাবেন তাদের আমদানি করা সব স্বর্ণ রফতানি করতে হবে। কাঁচামাল হিসেবে যেটুকু স্বর্ণ আমদানি করবেন, তার সবটুকু রফতানির কাজে লাগাবেন। আমরা আমদানি-রফতানির সব হিসাব রাখব। বন্ড সুবিধায় আনা স্বর্ণ কোনোভাবেই খোলা বাজারে বিক্রি করা যাবে না।’

তিনি জানান, তবে অলংকার আমদানিতে বন্ড সুবিধা দেয়া হবে না, কেননা অলংকার চূড়ান্ত (ফিনিশড) পণ্য।

স্বর্ণ নীতিমালা ব্যবসাবান্ধব হয়েছে উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘এই শিল্পের বিকাশ এবং স্বর্ণ ব্যবসাকে আরো জনপ্রিয় করতে সরকার বদ্ধপরিকর। এ জন্য জুয়েলার্স ব্যবসায়ীদের মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে স্বর্ণ নীতিমালা করা হয়েছে। সরকার এখানে কোন কিছু চাপিয়ে দেয়নি।’

তিনি ব্যবসায়ীদের এই নীতিমালা মেনে বৈধভাবে ব্যবসা করার আহবান জানান।

স্বর্ণ মেলার আয়োজন প্রসঙ্গে মোশাররফ হোসেন বলেন, সাধারণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে এক ধরনের করভীতি রয়েছে। সেটি আমরা দূর করতে চাই। যাতে ব্যবসায়ীরা রাজস্ব কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কর প্রদান করতে পারেন।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, করমেলার ন্যায় স্বর্ণ মেলায় ব্যবসায়ীরা স্বতস্ফূর্তভাবে কর প্রদান করবেন।

তিনি বলেন, সাধারণ স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা চোরচালানের সঙ্গে জড়িত নয়। এর সঙ্গে একটি বিশেষ গোষ্ঠী জড়িত। তবে স্বর্ণ নীতিমালা হয়ে যাওয়ায় এখন আর স্বর্ণ চোরাচালানকারিরা সুবিধা করতে পারবে না।

উল্লেখ্য, মেলায় মজুদকৃত কাগজপত্রবিহীন বা অঘোষিত স্বর্ণ নির্দিষ্ট পরিমাণ কর দিয়ে বৈধ করার সুযোগ পাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। স্বর্ণ বৈধকরণে গত মাসে এনবিআর একটি পরিপত্র জারি করে। পরিপত্র অনুযায়ী-অঘোষিত প্রতি ভরি স্বর্ণ ও স্বর্ণের অলংকারে ১ হাজার টাকা, হীরায় ৬ হাজার টাকা ও রুপায় ৫০ টাকা আয়কর প্রদান করে বৈধ করা যাবে।মেলায় ব্যবসাযীরা এ সুযোগ কাজে লাগাতে পারছেন। মেলায় ব্যাংকের বুথসহ কর পরিশোধের আনুষঙ্গিক সুবিধাদি রয়েছে।

এনবিআর সদস্য কানন কুমার রায় জানান, পরিপত্র অনুযায়ী আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত ব্যবসায়ীরা অঘোষিত সোনা বৈধ করার সুযোগ পাবেন। তিনি ব্যবসায়ীদের এ সময়ের মধ্যে অপ্রদর্শিত স্বর্ণ ঘোষণা দিয়ে বৈধ করার আহ্বান জানান।

ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রামে তিন দিনব্যাপী মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং দেশের অন্যান্য বিভাগীয় শহরে মেলা চলবে দুই দিন। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মেলা চলবে।
খবর বাসস

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ