এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২২ হাজার কোটি টাকা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১১ জুন ২০১৯, ০৮:৪১

দেশের ব্যাংকিং খাতে গত এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২২ হাজার কোটি টাকা। চলতি বছরের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ৮৭৩ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ১১ দশমিক ৮৭ শতাংশ। গত তিন মাসে বেড়েছে ১৬ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা।

মার্চ শেষে দেশের ব্যাংক খাতে অবলোপনকৃত খেলাপি ঋণের স্থিতি ছিল ৩৯ হাজার ২৪৮ কোটি টাকা। শ্রেণিকৃত ঋণের সঙ্গে অবলোপনকৃত খেলাপি ঋণের স্থিতি যোগ করলে দেশের ব্যাংক খাতে মোট খেলাপি ঋণ দাঁড়ায় একলাখ ৫০ হাজার ১২১ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। ২০১৮ সালের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৮৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। যা ছিল ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২২ হাজার কোটি টাকা২০১৮ সালের একই সময়ে খেলাপি ঋণ ছিল ৮৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। যা ছিল ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। আগের কোনো এক বছরে এতো বেশি খেলাপি ঋণ বাড়েনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, তিন মাস আগে অর্থাৎ গত ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ ছিল ৯৩ হাজার ৯১১ কোটি টাকা। এই হিসাবে গত তিন মাসে খেলাপি বেড়েছে ১৬ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, মোট খেলাপি ঋণের অর্ধেকই রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক ও বিডিবিএলে। মার্চ শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত এই ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৫৩ হাজার ৮৭৯ কোটি টাকা। এ সময় রাষ্ট্রীয় মালিকানার ব্যাংকগুলোর মোট বিতরণ করেছে এক লাখ ৬৭ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। বিশেষায়িত দুই ব্যাংকের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমান দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ এই সময় তাদের মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৬০২ কোটি টাকা ।

খেলাপি ঋণ বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকগুলোতেও। মার্চ শেষে ৪০টি বেসরকারি ব্যাংকের মোট ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৫ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা। এরমধ্যে খেলাপি ঋণ ৪৯ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা। আর দেশে পরিচালিত ৯টি বিদেশি মালিকানার ব্যাংকে চলতি বছরের মার্চ শেষে মোট ৩৬ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা বিতরণ করে। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৫৬ কোটি টাকা। যা বিতরণ হওয়া ঋণের ৬ দশমিক ২০ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, মার্চ শেষে সব ব্যাংকের মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৩৩ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা।

জানতে চাইলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, সুশাসন না থাকার পাশাপাশি রাজনৈতিক প্রভাব, ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের চাপ ও ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাদের পেশাদারিত্বের অভাবে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ঋণ খেলাপি নীতিমালা পরিবর্তন হয়েছে। এরপরও ব্যাপক হারে বেড়েছে খেলাপি ঋণ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাজনৈতিক প্রভাব, ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের চাপ, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পেশাদারিত্বের অভাবে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে। এক্ষেত্রে সুদের হারও খেলাপি ঋণ বাড়ানোর ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছে।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ