ভারতে পোশাক রফতানি বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৯ মার্চ ২০১৯, ১০:২৫

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্শি বলেছেন, ভারতে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক পণ্যের বিপুল চাহিদা রয়েছে। কিন্তু বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বেশ কিছু সমস্যা রয়ে গেছে। তাই দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সহজীকরণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি পোশাক রফতানি বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হবে। 
সোমবার সচিবায়লয়ে নিজ কার্যালয়ে ঢাকায় ভারতের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রিভা গাংগুলী দাসের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

বৈঠকে বাণিজ্য সচিবের দায়িত্বে নিযুক্ত অতিরিক্ত সচিব এস এম রেজোয়ান হোসেন, অতিরিক্ত সচিব (এফটিএ) মো. শফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, তৈরি পোশাক ভারতের বাজারে বিক্রয় করলে বাংলাদেশ লাভবান হবে। ভারতও চায় বাংলাদেশের তৈরি পণ্য সেদেশে রফতানি হোক। বাংলাদেশ সেই প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখায় উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি বলেন, বর্ডার হাট ভারত এবং বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি করেছে। বর্তমানে ৪টি বর্ডার হাট চালু আছে, আরো ৬টি বর্ডার হাট স্থাপন প্রক্রিয়াধীন। উভয় দেশের মানুষের পণ্য ক্রয় সীমা বৃদ্ধির পাশাপাশি হাটের পরিধিও বাড়ানো হচ্ছে।

তিনি জানান, মিরেরসরাই এবং মোংলায় দুটি বড় ইকোনমিক জোনে ভারত বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।এতে আগামীতে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে অনেক পরিবর্তন আসবে।

ভারতের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রিভা গাংগুলী দাস বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধির অনেক সুযোগ রয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।বাংলাদেশের পণ্য ভারতের বাজারে বিক্রয় হচ্ছে। অনেক পণ্যের বেশ চাহিদা রয়েছে ভারতে। তবে বাণিজ্য ক্ষেত্রে যেসব জটিলতা রয়েছে সেসব আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে বলে তিনি জানান।
তিনি বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

উল্লেখ্য, গত অর্থবছরে বাংলাদেশ ভারতে ৮৭৩ দশমিক ২৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি করেছে। একই সময়ে বাংলাদেশ আমদানি করেছে ৮,৬১৯ দশমিক ৪০ মিলিয়ন ডলারের পণ্য।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food