বান্দরবানে বাড়িতে ঢুকে বাবা-ছেলেকে গুলি করে হত্যা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ আগস্ট ২০১৮, ১৪:২০ | আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০১৮, ২০:২৬

রুমা (বান্দরবান), ০৪ আগস্ট, এবিনিউজ : বান্দরবানের প্রত্যন্ত উপজেলা রুমায় প্রতিপক্ষের গুলিতে পাইন্দু ইউনিয়নের সাবেক পাড়া প্রধান (কার্বারী) ক্যঅংপ্রু মারমা (৬৫) ও তার ছেলে মংচাইহ্লা মারমা (২১) নিহত হয়েছে। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাইন্দু ইউনিয়নের পাইন্দু উজানী পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এতে ক্যাংপ্রুর আরেক ছেলে মংক্যহ্লা মারমা (২৫) গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

শনিবার দুপুরে ঘটনাস্থল থেকে লাশ দু'টি উদ্ধার করেছে পুলিশ। গুলিবিদ্ধ মংক্যহ্লা মারমাকে রুমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা গত ২০১৭ সালের জুলাইয়ে সংঘটিত শিক্ষক নুশৈমং মারমা হত্যার ঘটনার সাথে সম্পর্কিত হতে পারে বলে সন্দেহ করছেন। নিহত ক্যমংউ মারমা এবং তার আহত পুত্র ওই শিক্ষক হত্যা ঘটনায় প্রায় তিন মাস জেল খেটে গত ফেব্রয়ারী মাসে ছাড়া পান। নিহত শিক্ষক নুশৈমং মারমা পাইন্দু উজানী পাড়ার ইউএনডিপির পরিচালিত একটি বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন।

গত ২০১৭ সালের জুলাইয়ের ২৬ তারিখ তাকে গাদা বন্দুক (স্থানীয়ভাবে হাতে তৈরি এক ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র) দিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। সে সময় ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহত ক্যঅংপ্রু মারমা এবং তার তিন সন্তানকে আটক করে পুলিশ। আটক কৃতদের মধ্যে নিখোঁজ এবং আহত দুই ভাইও ছিলেন। সে সময় যারা গ্রেফতার হন তারা হলেন, তিন ভাই  হ্লাসিংমং মারমা, মংক্যহ্লা মারমা, মংবাসিং মারমা এবং তাদের বাবা ক্যঅংপ্রু মারমা।

পাড়ার বাসিন্দাদের কাছে জানা যায়, বেশ কয়েক বছর ধরে জমি-জমা সংক্রান্ত বিষয় এবং পাড়ার কারবারী পদবী নিয়ে নিহত শিক্ষক নুশৈমং মারমা এবং শুক্রবার নিহত ক্যমংউ মারমার পরিবারের পরিবারের মধ্যে দ- চলছিল। নিহত ক্যঅংপ্রু মারমা ছিলেন পূর্বের পাড়া কারবারী, বর্তমানে কারবারী হিসেবে আছেন নিহত শিক্ষকের বড় ভাই মংরেঅং মারমা।

ঘটনাস্থলে পুলিশ ছাড়াও সেনাবাহিনী উপস্থিত রয়েছেন। ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তি বা ব্যক্তিরা পলাতক।

এবিএন/চনুমং মারমা/জসিম/এমসি

এই বিভাগের আরো সংবাদ