তেঁতুলিয়ার ভজনপুরে পানিবন্দি হাজারো মানুষ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৪৮

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যানের স্বজনপ্রীতিতে একটি পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে সুযোগ সুবিধা দিতে গিয়ে পানিবন্দি হয়ে দুর্ভোগে পড়েছে হাজারো মানুষ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, একট ড্রেনেজ ব্যবস্থার মুখ সরু ও অন্যটি বন্ধ করে রাখায় গত কয়েকদিনের লাগাতার ভাড়ি বর্ষণের কারণে জলাবদ্ধতায় কোমর পর্যন্ত পানিতে আটকা পড়ে দূর্ভোগে পড়েছেন তারা। জলাবদ্ধতার পানিতে ভেঙ্গে গেছে ঘর, রান্নাঘরসহ ব্যবসায়ীদের দোকান, নষ্ট হয়েছে বিভিন্ন পণ্য।

আজ শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ভজনপুর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, চেয়ারম্যানের স্বজনপ্রীতিতে পুরো বাজার জলমগ্ন। বাজারের মধ্যে দিয়ে পানি নিস্কাশনের জন্য প্রায় আধা কিলোমিটার লম্বা একটি ড্রেন থাতলেও সেই ড্রেনের শেষ মাথায় সরু করে রাখা হয়েছে। ওই ড্রেন নির্মানের পর স্লাপ দিয়ে ঢেকে মাটি চাপা দিয়ে উপরে দোকান ঘর নির্মান করেছে স্থানীয় আলহাজ্ব আব্দুল জলিল। সেই ঘর যেন ভাংতে না হয় তাই স্থানটি বাদ দিয়ে চেয়ারম্যান ড্রেনের মাঝ খানে প্রসস্থ করন কাজ একাধীকবার করেছে। আর একারনে পুরো বাজার জলমগ্ন হয়ে থাকে। একটু বৃষ্টিতে জলাবদ্ধা সৃষ্টি হয় পুরো ভজনপুর বাজারে।

এমন কি স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা রমজান আলী, তসলিমদ্দীন, ফারুক হোসেনসহ অনেকের বাড়িতে জলাবদ্ধতায় কোমর পর্যন্ত পানি জমে গেছে। এতে করে চরম দূর্ভোগে পড়েছে স্থানীয় পরিবারগুলো।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ড্রেনটি শুরু হয়েছে ভজনপুর খাদ্য গুদাম সংলঘ্ন সড়ক থেকে আর শেষ হয়েছে ভজনপুর পুরাতন করতোয়া সেতুর পশ্চিম প্রান্তে। এর মাঝে সব সময় জলমগ্ন থাকে ভজনপুর টি-ইসলাম মার্কেট, হাইওয়ে থানা সড়ক, গ্রামীন ব্যাংক সড়ক, পুরাতন পরিষদ সড়ক, ভজনপুর সকরারী প্রথমিক বিদ্যালয় সড়ক, মুক্তি যোদ্ধা মার্কেট ও সড়ক, জাকের পার্টি মসজিদ সড়ক।

তবে সব থেকে বেশী সমস্যা দেখা দিয়েছে ভজনপুর মুক্তিযোদ্ধা মার্কেট থেকে শুরু করে জাকের পার্টি মসজিদ পর্যন্ত। এতে করে কোমর পর্যন্ত জলাবদ্ধতার পানিতে অনেকেই নামাজে যেতে পরছে না।

অন্যদিকে, দেখা গেছে প্রায় সারাবছরই জলমগ্ন থাকে টি-ইসলাম মার্কেট ও হাইওয়ে থানা সড়ক এবং কলেজ রোড জাকের পার্টি মসজিদ সড়ক। তবে এবার অতি বৃষ্টিতে মরার উপর খারার ঘা হয়ে দারিয়েছে। ড্রেনের শেষ মাথা সরু হওয়ায় এবার অতি বৃষ্টিতে সড়কের হাটু পানি আশপাশের দোকান ঘরে গিয়েও ঢুকছে। অনেক দোকানের মালামাল জলাবদ্ধতারা পানি ও বৃষ্টির পানিতে ভিড়ে গেছে।  

আরো দেখা গেছে, তেঁতুলিয়া- পঞ্চগড় মহাসড়কের দক্ষিণ পাশদিয়ে করতোয়া নদী পর্যন্ত নির্মিত নতুন ড্রেনটিও বন্ধ করে রাখা হয়েছে। এতে করে লাগাতার ভাড়ি বর্ষণে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ঠিক না থাকায় ডুবে গেচে গেছে আশপাশের বাড়িসহ রাস্তাগুলো।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আরিফ হোসেন, ফারুক, সোহেল ও সেলিমসহ কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, দুটি ড্রেনের মধ্যে একটির মুখ বন্ধ থাকায় এবং অপরটির মুখ একেবারে সরু হওয়ায় বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে কোমর পর্যন্ত পানি জমে গেছে চারপাশে। দীর্ঘদিনের এই সমস্য সমাধান না করে চেয়ারম্যান শুধু মাত্র একটি পরিবারের সুভিদার কথায় ভাবছে। ইতিমধ্যে ঐ একই স্থানে ড্রেনের উপর নতুন করে আরো দুটি বাড়ি ও দোকান নির্মান করা হয়েছে। এতে পানি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ হয়ে দূর্ভোগে পড়তে হচ্ছে সবাইকে।

ভজনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোকছেদ আলী স্বজনপ্রীতির বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে জানান, বিষয়টি দেখছি।

এ বিষয়ে তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহাগ চন্দ্র সাহা জানান, আমরা ভজনপুর বাজারের জলাবদ্ধতার খবর পেয়েছি। সরেজমিনে গিয়ে বিষয়টি দেখছি।


এবিএন/ডিজার হোসেন বাদশা/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ