কালীগঞ্জে পুকুর ও ফসলি জমিতে দুর্বৃত্তায়ন : সর্বশান্ত কৃষক

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৬:৩৩

পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরে ফেলা, বেগুন গাছ কেটে দেওযার পর এবার হতদরিদ্র এক কৃষকের ১৫ শতক জমির ধরন্ত করলা ক্ষেত কেটে দিয়েছে দূর্বৃত্তরা। সোমবার রাতে কে বা কারা এই ক্ষেত কেটে দিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার তিল্লা গ্রামের মাঠে বিকাশ বিশ^াসের ক্ষেতে। এতে ওই কৃষকের কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন। কৃষক বিকাশ বিশ^াস ওই গ্রামের মৃত সতীশ বিশ^াসের ছেলে।

বিকাশ বিশ^াস জানান, ১৫ শতক জমিতে এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে করলা চাষ করেছিলেন। গাছগুলোতে বেশ করলা ধরেছিল। মঙ্গলবার সকালে নিজের জমির করলা গাছ কাটা দেখে হতাশ হয়ে পড়েন তিনি। এ সময় তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, যারা এটা করেছে তাদেরই বা কি লাভ ? এখন কি করে সারাবছর সংসার চালাবো আর কি করেই বা এনজিওর ঋনের টাকা পরিশোধ করবো?
কালীগঞ্জ থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মাহাফুজুর রহমান মিয়া বলেন, করলা ক্ষেত কাটার ব্যাপারে এখনো কোন অভিযোগ পায়নি। ওই কৃষক থানায় অভিযোগ দিলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।


উল্লেখ্য গত শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) কালীগঞ্জ উপজেলার ষাটবাড়িয়া গ্রামের বাপ্পি মোল্লা নামের এক হতদরিদ্র কৃষকের ১০ শতক জমির ধরন্ত বেগুন ক্ষেত কেটে দেয় দুর্বৃত্তরা। এর কিছুদিন আগে (২৮ আগস্ট)  মালিয়াট ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য কবিরুল ইসলাম নান্নুর পুকুরে বিষ দিয়ে দেড় লাখ টাকার বিভিন্ন  প্রকারের মাছ বিষ দিয়ে মেরে ফেলা হয়। সম্প্রতি কালীগঞ্জে পুকুরে বিষ প্রয়োগে মাছ মেরে ফেলা, কৃষকের ধরন্ত ফসলী গাছ কেটে দেওয়ার মত দুর্বৃত্তায়ন চলছে।

এতে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতি মুখে পড়ে সর্বশান্ত হচ্ছেন। অনেক কৃষক এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে সেসব টাকা ফেরত দিতে না পেরে হতাশায় ভুগছেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ এ ধরনের অপরাধ করে অপরাধীরা পার পেয়ে যাওয়ায় এবং আইনের আওতায় না আসায় দিন দিন ্এ এসব ঘটনা বেড়েই চলেছে।


এবিএন/যবনিকা/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ