কমলগঞ্জের চা বাগান খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন অব্যাহত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ আগস্ট ২০২০, ০১:৩৭ | আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০২০, ০১:৪৩

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় নোটিশ টাঙ্গিয়ে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ব্যক্তি মালিকানাধীন দলই চা বাগান বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। বন্ধের প্রতিবাদে কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন চা বাগানে অব্যাহতভাবে চা বাগানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে চা শ্রমিক ও চা-ছাত্র যুব পরিষদ। গতকাল সোমবার (৩ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে মাধবপুর, পাত্রখোলা ও দলই চা বাগানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু-ধলই ভ্যালির কার্যকরি কমিটির সভাপতি ধনা বাউরীর সভাপতিত্বে দলই চা বাগানে বেলা আড়াইটায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিযনের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক নিপেন পাল, মনু-ধলই ভ্যালীর সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, মাসিক চা মজদুর পত্রিকার সম্পাদক সীতারাম বীন, জাগরণ যুব ফোরামের সভাপতি মোহন রবিদাস ও প্রদীপ পাল প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বেআইনী নোটিশ প্রত্যাহার করে বন্ধ রাখা দলই চা বাগান অবিলম্বে খুলে দিতে হবে। বন্ধকালীন দিনগুলোর চা শ্রমিকদের পূর্ণ মজুরি দিতে হবে এবং সরকার কর্তৃক গঠিত মজুরি বোর্ডের মাধ্যমে ঘোষিত মজুরী বাস্তবায়ন করতে হবে। চা বাগানে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজের পরও পূর্ব কোন ঘোষণা ছাড়া বেআইনীভাবে নোটিশ দিয়ে চলমান চা  বাগান বন্ধ করে উৎপাদনশীল একটি চা বাগানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার জন্য দলই চা বাগান মালিক পক্ষের শাস্তিরও দাবি জানানো হয়।

এর আগে সকাল ১০টায় মাধবপুর চা বাগানে বীর শ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমান সড়কে চা-ছাত্র যুব পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা শ্রমকি ইউনিয়নের মনু-ধলই ভ্যালীর সভাপতি ধনা বাউরী, সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, চা মজদুর পত্রিকার সম্পাদক সীতারাম বীন, পাত্রখেলা চা বাগানের ছাত্র নেতা প্রদীপ পাল, স্বপন কুমার নুনিয়া,ছাত্র নেতা সুগরীম দাস প্রমুখ। এসময় বক্তব্য রাখেন নরায়ন রাজবংশী, রিপন, রাম সিং, কান্তি লাল বাগতি।

বেলা ১২টায়  পাত্রখোলা চা বাগানে চা- ছাত্র যুব পরিষদের উদ্যোগে অবিলম্বে দলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। দলই চা বাগান খুলে দেবার দাবিতে ইতিপূর্বে মাধবপুরের ফাঁড়ি পদ্মছড়া, মিরতিঙ্গা, আলীনগর, শমশেরনগর চা বাগানে চা শ্রমিক ও চা ছাত্র-যুব পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, তিনি আশাবাদী মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) উপজেলা পরিষদের বৈঠকে এ সমস্যার একটি সমাধান হওয়ার আশা।


এবিএন/প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ/জসিম/অসীম রায়  

এই বিভাগের আরো সংবাদ