ঠাকুরগাঁওয়ে সরকারি নির্দেশনা না মেনেই বসছে গবাদি পশুর হাট

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২০, ২০:১৪

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে সরকারি নির্দেশনা ও সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনকে অম্যান্য করে প্রশাসনের নাকের ডগায় বসছে গবাদিপশুর হাট। কেউ মানছে না সামাজিক দূরত্ব। হাটে আসা অধিকাংশ লোকের মুখে নেই কোন মাস্ক। এমনকি বাজার ইজাদার কর্তৃক বিভিন্ন কাজে নিয়োগকৃত ব্যক্তিরাও মানছে না সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক পড়ছে না।

সপ্তাহে প্রতি মঙ্গলবার হরিপুর উপজেলার যাদুরানী হাটে সকাল থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার ক্রেতা-বিক্রেতা তাদের গবাদিপশুসহ বিভিন্ন পণ্যা সামগ্রী সরকারি নির্দেশনা ও সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে বেচা-কেনা করতে দেখা গেছে।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার ক্রেতা-বিক্রেতা যাদুরানী হাটে সমাগম করে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করে বেচা-কেনার কারণে হরিপুর উপজেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ পর্যন্ত হরিপুর উপজেলায় ২৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ২নং আমগাঁও ইউয়িনে অবস্থিত যাদুরানী হাটে সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার ক্রেতা-বিক্রেতা তাদের গবাদিপশুসহ বিভিন্ন পণ্যা সামগ্রী বেচা-কেনার জন্য আসে।

তারা কোন প্রকার সরকারি নির্দেশনা বা স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই গাদাগাদি করেই গবাদিপশুসহ বিভিন্ন পণ্যা সামগ্রী বেচা-কেনা করতে থাকে হাটের মধ্যে। সেই সাথে অধিকাংশ ক্রেতা-বিক্রেতার মুখে নেই মাস্ক।

যাদুরানী হাটে গরু কিনতে আসা নুর মোহাম্মদ নামের এক ক্রেতা জানান, দুপুরের দিকে এসেছি। একটি গরু কিনবো বলে। কিন্তু এখানে এসে দেখি হাজার হাজার লোকের সমাগম।

সেই সাথে এখানে নেই কোন সামাজিক দূরত্ব, অধিকাংশ লোকরে মুখে নেই কোন মাস্ক। একদম গাদাগাদি করেই চলছে গবাদিপশু বেচা-কেনা। তাই গরু না কিনেই অবশেষে বাড়ি ফিরে আসি। যদি এভাবে স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে হাট-বাজারগুলো চলতে থাকে তাহলে আমাদের ঠাকুরগাঁও জেলাসহ হরিপুর উপজেলার জনসাধারণ বিরাট স্বাস্থ্যঝুকিঁতে পড়ে যাবে।

জহরুল ইসলাম নামের আরেক ক্রেতা জানান, হাটের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে আমাদের ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলায় করোনা বলতে কিছু নেই। আমি মাস্ক পড়ে থাকলেও হাটের বেশির ভাগ মানুষ মাস্ক তো দূরের কথা কোন প্রকার স্বাস্থ্যবিধিও মানছেনা।

আমার মতে এভাবে যদি এই হাট চলে তাহলে আমাদের ঠাকুরগাঁও জেলাসহ হরিপুর উপজেলায় বেড়ে যাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল করিমের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই বলবো না, বিষয়টি আপনি ডিসি স্যারকে বলেন।

জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম এর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি এতদুর থেকে কি ব্যবস্থা নিব, আপনারা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলেন, তিনিই ব্যবস্থা নিবেন।

এদিকে হাট ইজাদার আব্দুল হামিদের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমরা হাটে আসা ক্রেতা ও বিক্রেতাগণকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাচল করতে এবং গবাদিপশুসহ পণ্য বেচা-কেনার কথা বলছি কিন্তু বাস্তবে অধিকাংশ মানুষ মানছে না।

এবিএন/রবিউল এহ্সান রিপন/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ