তিতাসে জেডিসি পরীক্ষায় পাশ করেও ভর্তি হতে পারছেনা শিক্ষার্থী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:৫২

কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় জেডিসি পরীক্ষায় সকল বিষয়ে পাশ করার পরও ভর্তি করছেনা মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ  এমন অভিযোগ শিক্ষার্থীর। 

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দুধঘাটা নুরে মোহাম্মদী দাখিল (স.) মাদ্রাসায়। অনুসন্ধানে জানা যায়, ওই স্কুলের নিয়মিত শিক্ষার্থী সামিয়া আক্তার ২০১৯ সালের জেডিসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২.৩৯ পেয়ে সকল বিষয়ে পাশ করেছে। বৎসরের প্রথমদিন অর্থাৎ ১ জানুয়ারি বিনামূল্যে বই উৎসবের দিন সামিয়া মাদ্রাসায় গেলে তাকে পাঠ্যবই দেয়নি মাদ্রাসা সুপার। পরবর্তিতে সে তার কাকীমা’কে নিয়ে ভর্তি হতে গেলে তাকে ভর্তিও করায়নি। 

এ রকমভাবে পর পর ৩ দিন ভর্তি হতে গিয়ে ফেরত আসে সামিয়া। কি কারণে ভর্তি করানো হচ্ছেনা জানতে চাইলে মাদ্রসার সহ-সুপার আব্দুল হালিম বলেন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ তোমাকে ভর্তি করানো যাবে না। 

মা হারা এতিম সামিয়া কান্নাজরিত কন্ঠে বলে আমার মা মারা গেছেন আজ দেড় মাস হলো, মা না থাকায় কাকীমা’কে নিয়ে পর পর ৩ দিন ভর্তি হতে যাই কিন্তু আমাকে ভর্তি করে না। 

কেনো ভর্তি করে না জানতে চাইলে সহ-সুপার বলেন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আমাকে ভর্তি না করার। কেনো ভর্তি করানো হচ্ছেনা সহ-সুপার আব্দুল হালিমের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনার সাথে আমি বেশি কথা বলতে পারব না এটা আমাদের প্রতিষ্ঠানের বিষয়। 

মাদ্রাসা সুপার মাওলানা ইব্রাহীম খলিল বলেন, ভর্তির বিষয়ে আমি জানি না, সহ-সুপার বলতে পারবেন কেনো ভর্তি করানো হচ্ছে না? উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আনোয়ারা চৌধুরী বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি এবং সুপারকে ফোন দিয়ে জানতে চেয়েছি কেনো ভর্তি করানো হচ্ছে না, সুপার আমাকে সঠিক উত্তর দিতে পারেনি, আমি ছুটিতে আছি এসে বিষয়টি দেখব। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাম্মৎ রাশেদা আক্তার বলেন কেনো ভর্তি করবে না? আমি সুপারের সাথে কথা বলবো। 

সামিয়ার পিতা শফিকুল ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে সকল বিষয়ে পাশ করার পরও কেনো ভর্তি করানো হচ্ছেনা বিষয়টি আমি সহ-সুপার আব্দুল হালিমের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, ফাউন্ডারদের সাথে আপনার সম্পর্ক যেহেতু খারাপ আপনি ২০ হাজার টাকা দেন আমি আপনার মেয়ের ভর্তির ব্যবস্থা করে দিবো। বিষয়টি আমি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আর্কষণ করছি।

এবিএন/কবির হোসেন/গালিব/জসিম
 

এই বিভাগের আরো সংবাদ