বেড়ায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নামে বৈধ্য স্থাপনা উচ্ছেদ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯:২৭

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ আজ সোমবার সকাল ১০টায় পাবনার বেড়ায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ পরিচালনা করেন। বাঘাবাড়ী নৌবন্দরকে গতিশীল করতে বেড়া নৌবন্দরে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয় বলে বিআইডাব্লিউটিএ-র কর্তৃপক্ষ জানান। 

নদীর তীরবর্তী স্থাপনা উচ্ছেদের নামে ব্যক্তি মালিকানাধীন স্থাপনা ধ্বংস করা হয় বলে ভুক্তভোগীরা জানান। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নামে বৈধ স্থাপনা ধ্বংস বেড়া বৃশালিখা আমদানি-রপ্তানিতে মালপত্র লোড-আনলোড না করার জন্য হুঁশিয়ারি ও জেল জরিমানার ভয় দেখিয়ে মাইকিং করার প্রতিবাদে আজ সন্ধ্যায় বেড়া আমদানী রপ্তানী ঘাট পরিচালনাকারী আলতাব হোসেন, হাবিবুবর রহমান হবি, ব্যবসায়ী নজরূল ইসলাম,ব্যবসায়ী জাহিদুল হক, ব্যবসায়ী আশরাফ আলী ও শ্রমিক সর্দার মিল্টু সরদার সাংবাদিক সন্মেলন করেন। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ঘাট পরিচালনাকারী আলতাব হোসেন। 

তিনি বলেন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পক্ষে আমরা সবাই কাজ করে যাচ্ছি, কিন্তু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নামে বৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা এক অশুভ কর্মকান্ডে এলাকার মানুষের মধ্যে হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বাঘাবাড়ী নৌবন্দর রক্ষার নামে করে আমাদের বৈধ ঘাট উচ্ছেদ করা এক চক্রান্তের শিকার এই প্রচীনতম নৌবন্দর। 

উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে দ্রুততম সময়ে,সহজ ও সুগম ভাবে পণ্য পৌছে দেওয়ার পথ হিসেবে এই বেড়া  নৌবন্দর দীর্ঘকাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে । দ্রুত পণ্য খালাস ও পরিবহন ব্যবস্থা ও নৌ বন্দর থেকে প্রধান সড়কের দূরত্ব কম হওয়ায় আমদানি-রপ্তানির সাথে জড়িত ব্যবসায়ীরা এই নৌবন্দরকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। 

এ বন্দর ব্যবহারের কৃষিতে কৃষকদের কাছে সবচাইতে সহজ উপায়ে ও কম সময়ে সার-বীজ পৌঁছে দেওয়া যায়। বক্ত্যবে এ ধরনের উচ্ছেদ অভিযান এক দুরভিসন্ধির প্রকাশ। এই বৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানের অন্তরালে অবৈধ নীল নকশা আছে বলেই তিনি মনে করেন। 

এবিএন/নির্মল সরকার/জসিম/বিদ্যুৎ

এই বিভাগের আরো সংবাদ