জগন্নাথপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত যুবকের মৃত্যু

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:৪৪

জগন্নাথপুর পৌর শহরের ইসহাকপুরে পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত সরুয়ান আলী সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ১১চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। নিহত সরুয়ান আলী ইসহাকপুর এলাকার সুন্দর আলীর ছেলে।

আজ শনিবার সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে নিহত সরুয়ান আলীর মরদেহ বিকেল সাড়ে ৩টায় ইসহাকপুরে পৌছলে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। সরুয়ান আলীর মরদেহ দেখতে জগন্নাথপুর পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত নারী-পুরুষ বাড়িতে ভীড় জমান। সরুয়ান আলীর মা বাবা ভাই বোন ও আত্মীয় স্বজনদের কান্নায় আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠে। ওই দিন বাদ মাগরিব  ভবের বাজার মাঠে সরুয়ান আলীর জানাযা শেষে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

এঘটনায় সরুয়ান আলীর পিতা সুন্দর আলী বাদী হয়ে ২২জনকে আসামী করে জগন্নাথপুর থানায়  মামলা দায়ের করেন। এলাকাবাসী সূত্রে জানায়, ইসহাকপুর এলাকার আব্দুস ছত্তার পক্ষের লোকজন ও জলাল আহমদের লোকজনদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

এরই জের ধরে গত ২৮ অক্টোবর রাত ১টায় সরুয়ান আলী জগন্নাথপুর পৌর শহরের আছিমশাহ মাজারের গানের অনুষ্টান থেকে বাড়ি ফেরার পথে জগন্নাথপুর-ভবের বাজার সড়কের মনাই ভাংতি নামক এলাকার প্রতিপক্ষ আব্দুস ছত্তারের লোকজন সরুয়ান আলীর উপর হামলা করে মাথা সহ শরীরে বিভিন্ন স্থানে গুরুতর আঘাত করে পালিয়ে যায়।

পরে এলাকার লোকজন প্রথমে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। টানা ১১দিন ওসমানী মেডকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় সরুয়ান আলীর মৃত্যু হয়।  এ ঘটনার পর থেকে দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।  

খবর পেয়ে সোমবার রাতে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আব্দুল ছত্তারের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১টি পাইপগান ও বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসহ ১৩জন সন্ত্রাসীকে আটক করেন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করেন।


এবিএন/রিয়াজ রহমান/জসিম/তোহা                                 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ