খুলনার উপকূলে চলছে পুলিশের প্রচারণা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:৫৮

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ বিষয়ে সাধারণ মানুষকে সতর্ক এবং আশ্রয় কেন্দ্রে আসতে বলা হয়েছে খুলনার উপকূলের বাসিন্দাদের। বিভিন্ন স্থানে মাইকিং ও বিভিন্ন প্রচারণার মধ্যেমে তাদের আশ্রয় কেন্দ্রে আসতে বলা হচ্ছে। এছাড়াও পরবর্তী নিদের্শ না দেওয়া পর্যন্ত জেলার সব নৌ রুটের নৌ যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় খোলা হয়েছে ৩৪৯ টি আশ্রয় কেন্দ্র। খুলনার পুলিশ সুপার এস এম সফিউল্লাহ জানান, ‘শুক্রবার সন্ধ্যার পর সংকেত ৪ থেকে বাড়িয়ে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। তাই আমরা উপকূলের বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয় আসতে বলেছি। খুলনা জেলা পুলিশের সদস্যরা উপকূলের বাসিন্দাদের নিরাপদ আনতে কাজ করছে।’

খুলনা আবহাওয়া অধিদপ্তরের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ জানান, ‌‌‘ঘূর্ণিঝড়টি ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে উঠছে এবং শনিবার সন্ধার মধ্যে উপকূলে আঘাত হানতে পারে।’

সন্ধ্যায় ঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুতিমূলক জরুরি সভা করেছে জেলা প্রশাসন। শুক্রবার (০৮ নভেম্বর) বিকেলে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। সভায় জেলা প্রশাসক ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের সার্বিক কর্ম-পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেন এবং ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলার প্রস্ততি নিয়ে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন।

সভায় জেলা প্রশাসক মোঃ হেলাল হোসেন জানান, ‘ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলা প্রশাসন খুলনা সদা জাগ্রত ভূমিকায় রয়েছে। দুর্যোগ মোকাবেলায় খুলনায় ৩৪৯ টি সাইক্লোন সেল্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও নয়টি উপজেলায় মোট ১০টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। স্থানীয় মানুষকে সচেতন করার জন্য দাকোপ, কয়রা, পাইকগাছা ও বটিয়াঘাটা উপজেলায় দুপুর থেকে মাইকিং করা হচ্ছে।

পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জেলা পর্যায়য়ে কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। আগামী ১০ থেকে ১২ নভেম্বর সুন্দরবনের দুবলার চরে অনুষ্ঠিতব্য রাসমেলায় যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সাইক্লোন পিপাডনেস প্রোগ্রাম (সিপিপি) এর কর্মীরা প্রস্তুত রয়েছে।

সভায় খুলনার পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা, কোস্টগার্ড, পানি উন্নয়ন বোর্ড, খুলনা সিটি কর্পোরেশন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা, কৃষি অফিস, আবহাওয়া অফিস, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, প্রণিসম্পদ বিভাগ, মৎস্য বিভাগ এর কর্মকর্তা, স্কাউটস, রেড ক্রিসেন্ট, বিভিন্ন এনজিও এর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ